বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের

This post is also available in: বাংলাদেশ

বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল-কাদের, রাজপথ দখলের নামে বিএনপি যদি আবারও আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নেয় তাহলে দাঁত ভাঙা জবাব দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের

 

বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের

 

তিনি বলেন, ‘বিএনপির হুমকি-ধামকি যতটা গর্জে বাস্তবে ততটা বর্ষে না। রাজপথ দখলের নামে তারা যদি আবারও জ্বালাও পোড়াও এবং আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নেয় তাহলে জনগণের জানমালের নিরাপত্তার স্বার্থে জনগণকে সাথে নিয়ে দাঁত ভাঙা জবাব দেয়া হবে।’ ওবায়দুল-কাদের আজ বুধবার সকালে রাজধানীর সেতু ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতাদের রাজপথ দখলের হুমকি প্রসঙ্গে এ কথা বলেন।

 

বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, রাজপথ কোন ব্যক্তি বা দলের সম্পত্তি নয়, রাজপথ জনগণের সম্পত্তি, কাজেই জনগণের সম্পত্তি সুরক্ষার দায়িত্ব সরকারের। আওয়ামী লীগের লড়াকু নেতাকর্মীদের রাজপথ দখলের হুমকি দিয়ে কোন লাভ নেই উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ রাজপথে আন্দোলন-সংগ্রাম করেই সরকারে এসেছে। রাজপথে ত্যাগ-তিতিক্ষার অভিজ্ঞতা আমাদের আছে।

 

বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের

 

‘বাংলাদেশ থেকে পালানোর ইতিহাস বিএনপির’ এমন মন্তব্য করে ওবায়দুল-কাদের বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি, রাজনীতি করবেনা বলে মুচলেকা দিয়ে বিদেশে পালিয়েছে। আওয়ামী লীগের পালানোর কোন ইতিহাস নেই। তিনি বলেন, আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠা আওয়ামী লীগের শিকড় এদেশের মাটি ও মানুষের অনেক গভীরে। যত সংকট আর ষড়যন্ত্রই হোক না কেন আওয়ামী লীগ এদেশেই থাকবে। দেশের মাটি ও মানুষের মাঝে থাকবে।

 

বিএনপি আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিলে জবাব দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের

 

এর আগে সেতু ভবনে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল-কাদেরের সঙ্গে  বাংলাদেশে নিযুক্ত চায়না রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এসময় পিরোজপুর জেলার কচা নদীর উপর নবনির্মিত অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু (বেকুটিয়া)  হস্তান্তর ও এর উদ্বোধন এবং এ বছরেরশেষ দিকে  কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল উদ্বোধনের  বিষয়ে আলোচনা হয়। এছাড়াও তারা চীনের সহায়তায় বাস্তবায়নাধীন অন্যান্য প্রকল্পের অগ্রগতি নিয়েও আলোচনা করেন।

আরও দেখুনঃ

This post is also available in: বাংলাদেশ

মন্তব্য করুন