তেরখাদা উপজেলা, খুলনা

This post is also available in: বাংলাদেশ

তেরখাদা উপজেলার আয়তন ১৮৯.৪৮ বর্গ কিমি। উত্তরে কালিয়া উপজেলা, দক্ষিণে রূপসা উপজেলা, পূর্বে মোল্লাহাটা উপজেলা, পশ্চিমে দীঘলিয়া উপজেলা। প্রধান নদী হলো : আঠারোবাঁকী। উপজেলা শহর ২টি মৌজা নিয়ে গঠিত। আয়তন ১০.১৭ বর্গ কিমি। জনসংখ্যা ১০১৩৬; পুরুষ ৫২.২২%, মহিলা ৪৭.৭৮%। জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিমি ৯৯৭ জন। শিক্ষার হার ৪০.২%। ডাকবাংলো ১।

তেরখাদা উপজেলা, খুলনা
তেরখাদা উপজেলা, খুলনা

তেরখাদার নামকরণ নিয়ে বিভিন্ন কাহিনী প্রচলিত রয়েছে।সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য হলো এ এলাকায় ১৬ বিঘা জমি নিয়ে হয় ১ খাদা,তেমনি ১৩x১৬=২০৮ বিঘা জমিতে চিত্রা নদীর চরে ২ শতাধিক বছর পূর্বে প্রথম জনবসতি গড়ে উঠে।সেই থেকে এর নাম হয় তেরখাদা। ১৯১৮ খ্রিঃ তেরখাদা থানার সৃষ্টি এবং প্রশাসনিক বিকেন্দ্রী করণের ফলশ্রুতিতে থানাটি পরবর্তীতে উপজেলার মর্যাদা লাভ করে। ভৌগলিক অবস্থাগত কারণে তেরখাদা উপজেলাটি গুরুত্বপূর্ণ,যার উত্তরে কালিয়া উপজেলা, দক্ষিণে রুপসা উপজেলা, পুর্বে মুল্লাহাট উপজেলা ও পশ্চিমে দিঘলিয়া উপজেলা অবস্থিত।

সরকারি নর্থ কলেজ, তেরখাদা, খুলনা

তেরখাদা উপজেলা প্রশাসন :

তেরখাদা থানা সৃষ্টি ১৯১৮ সালে। বর্তমানে এটি উপজেলা। ইউনিয়ন ৬, মৌজা ৩১, গ্রাম ৯৬।

ঐতিহাসিক ঘটনাবলি:

১৯৭১ সালের ১৫ মে পাকবাহিনী শাহপাড়া ও ছাচিয়াদহ গ্রামে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করে।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচিহ্ন :

স্মৃতিস্তম্ভ ১, স্বাধীনতা উদ্যান ১।

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান:

মসজিদ ১৫৭, মন্দির ৫৪।

জনসংখ্যা : ১০২৯৭২; পুরুষ ৫১.০১%, মহিলা ৪৮.৯৯%। মুসলমান ৭৫.৫০%, হিন্দু ২৪.২০%, অন্যান্য ০.৩০%।

শিক্ষার হার :

শিক্ষার গড় হার ৩১.৬%; ৩১.৬%; পুরুষ ৩৭.১%, মহিলা ২৫.৮%। কলেজ ২, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১০, প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫১, মাদ্রাসা ৬।

উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠান:

ইখড়ী কাটেঙ্গু ফজলুল হক মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৩২)।

সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান :

পাবলিক লাইব্রেরি ১, নাট্যদল ২, সমবায় সমিতি ১০৩, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ১।

জনগোষ্ঠীর প্রধান পেশাসমূহ :

কৃষি ৫১.৯৪%, মৎস্য ২.৫৯%, কৃষি শ্রমিক ১৯.৯%, অকৃষি শ্রমিক ১.৫৮%, চাকরি ৭.৫৬%, ব্যবসা ৬.৮৮%, পরিবহণ ১.৫৪%, অন্যান্য ৮.০১%।

ভূমি ব্যবহার :

আবাদি জমি ১৩৪৯৮.১৮ হেক্টর; এক ফসলি ৬২.৩১%, দো ফসলি ৩৬:১২%, তিন ফসলি ১.৫৭%। সেচের আওতায় আবাদি জমি ৯৫%। প্রথম শ্রেণীর আবাদি জমির মূল্য ০.০১ হেক্টর প্রতি ২৫০০ টাকা।

কৃষি উৎপাদন :

প্রধান প্রধান কৃষি ফসল ধান, নারিকেল, আখ। বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসল পাট। প্রধান ফল-ফলাদি আম, কাঁঠাল, কুল, নারিকেল, জামরুল।

গবাদি পশু, হাঁস-মুরগির খামার :

হাঁস-মুরগি ৭১, গবাদি পশু ৩৩।

যোগাযোগ : পাকা রাস্তা ২৪ কিমি, আধাপাকা রাস্তা ৩২.৫৭ কিমি, কাঁচা রাস্তা ২০৯

কিমি। শিল্প ও কলকারখানা চাল ও আটা কল ৫০, তেলকল ১৬, ইটের ভাটা ১, বরফকল ৩, ওয়েল্ডিং ৪।

কুটিরশিল্প :

স্বর্ণকার ১০, কামার ২০, বাঁশ ও বেতের কাজ ৩০, কাঠের কাজ ২১০, সেলাই কাজ ১৩০।

হাটবাজার মেলা:

হাটবাজার ৮, মেলা ৩।

প্রধান রপ্তানি দ্রব্য গলদা চিংড়ি, নারিকেল, ধান, কুল।

এনজিও কার্যক্রম :

ব্র্যাক, আশা, কেয়ার, প্রশিকা, লিগ্যাল এইডস, গণমুক্তি, জেজেএস।

স্বাস্থ্যকেন্দ্র :

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৬। বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, গয়না নৌকা, গরুর গাড়ি।

তেরখাদা উপজেলার প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব

কাজী ইমদাদুল হক, বিখ্যাত আবদুল্লা উপন্যাসের রচয়িতা

আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় (১৮৬১-১৯৪৪) আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন রসায়ন বিজ্ঞানী

কবি কৃষ্ণ চন্দ্র মজুমদার (১৮৩৪-১৯০৭) , কবি ও শিক্ষাবিদ

শচীন্দ্র নাথ সেনগুপ্ত (১৮৯২-১৯৬১) , রাজনীতি সচেতন নাট্যকার,

যুঁথিকা রায় , বিখ্যাত নজরুল সংগীত শিল্পী

মনোরঞ্জন সরকার, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী

মেহের মুসল্লী, সমাজ সেবক

কুমুদ বন্ধু রায় বাহাদুর, ১৮৮৮ সালে এন্ট্রান্স পরীক্ষায় অবিভক্ত বাংলায় প্রথম স্থান অধিকারী

এএফএম আবদুল জলিল, সুন্দরবনের ইতিহাস গ্রন্থের লেখক

এ্যাডভোকেট আব্দুল জব্বার, বিশিষ্ট আইনজীবী ও সমাজ সেবী

গাজী শামছুর রহমান, আইন-বিশেষজ্ঞ, বহু আইন বিষয়ক গ্রন্থের প্রণেতা

ডাক্তার আবুল কাশেম, বহু গ্নন্থের প্রণেতা

অধ্যাপক কে আলী, ইতিহসিবিদ

মানকুমারী বসু (১৮৬৩-১৯৪৩), কবি ও সাহিত্যিক

রায়সাহেব বিনোদ বিহারী সাধু, দানবীর ও সমাজ সেবক

ব্রজলাল শাস্ত্রী (১৮৭১-১৯৪৪), খুলনা জেলায় প্রথম কলেজ প্রতিষ্ঠকারী

প্রফুল্ল চন্দ্র সেন (কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন এন্ট্রাস পরীক্ষায়

প্রথমস্থান অধীকারী), পশ্চিম বঙ্গের সাবেক মূখ্যমন্ত্রী

ডঃ মশিউর রহমান, মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা

বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়

তালুকদার আব্দুল খালেক, মননীয় মেয়র, খুলনা সিটি কর্পোরেশন

আবদুর রাজ্জাক, সাবেক স্পীকার, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ

কাজী শামসুল আলম (সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব, সাবেক রেক্টর,

বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র)

শেখ আকিজ উদ্দিন , আকিজ শিল্প গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা

শৈলেন্দ্র নাথ ঘোষ, বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী

কামাক্ষা প্রসাদ রায় চৌধুরী, ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতা

ডঃ আইনুন নিশাত, বিশিষ্ট পানি বিজ্ঞানী

ডঃ এস কে বাকার, বিশিষ্ট সমাজ সেবক

এ্যাডভোকেট এনায়েত আলী, সাবেক জাতীয় পরিষদ সদস্য ও সাবেক

খুলনা পৌরসভার চেয়ারম্যান

সালাউদ্দিন ইউসুফ, সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মস্ত্রী

অ্যাড়ভোকেট এস এম আমজাদ হোসেন, সাবেক প্রাদেশিক সরকারের শিক্ষা মন্ত্রী

অ্যাড়ভোকেট এ এইচ এম দেলদার আহমেদ, সাবেক কেন্দ্রীয় সরকারের খাদ্য মন্ত্রী

আবু মোঃ ফেরদাউস, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ

অ্যাডভোকেট মনজুরুল ইমাম, সমাজ সেবক ও রাজনীতিবিদ

এম নুরুল ইসলাম দাদু ভাই, রাজনীতিবিদ

আবদুস সালাম মুর্শেদী, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক খেলোয়ার, বিজেএমই এর সাবেক সভাপতি এবং বাংলাদেশ ফুটবল

ফেডারেশন এর সহ : সভাপতি

শেখ মোঃ আসলাম, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক খেলোয়ার

আবুল কালাম আজাদ, মিঃ বাংলাদেশ একটানা বার বছর

অ্যাডভোকেট আবদুল হালিম (ভাষা সৈনিক,মুক্তিযুদ্ধের সংঘটক )

কমরেড রতন সেন, মুক্তিযুদ্ধের সংঘটক, রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টির বিশিষ্ট নেতা

হাসান হাফিজুর রহমান (সস্পাদক, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ দলিলপত্র, ১৫ খন্ড)

Gurukul Live Logo

 

আরও পড়ুন:

খুলনার নদ নদী

This post is also available in: বাংলাদেশ

মন্তব্য করুন