দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন । বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ

দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন (জন্ম ১ অক্টোবর ১৯৬২) রাজনীতিবিদ, লেখক ও সমাজসেবক। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির ঢাকা জেলার সভাপতি। তিনি ঢাকা-১৯ (সাভার-আশুলিয়া) থেকে পর পর দুইবার (১৯৯৬-২০০১, ২০০১-২০০৬) সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তার বাবা দেওয়ান ইদ্রিস একটানা ৪৫ বছর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এবং সংসদ সদস্য ছিলেন।

দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন । বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ

 

দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন । বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ

 

 

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন

দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিনের জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকা অদূরে সাভার উপজেলার ইয়ারপুর ইউনিয়নের জিরাবো গ্রামে। বাবা মরহুম দেওয়ান মোঃ ইদ্রিস (মৃত্যু ১০-০২-১৯৯০) এবং মাতা মরহুমা সালেহা ইদ্রিস (মৃত্যু ২২-০৫-২০১৩) ছয় সন্তানের মধ্যে দেওয়ান সালাউদ্দিন দ্বিতীয়। তার বাবা দেওয়ান মোঃ ইদ্রিস আশুলিয়া ও পরবর্তীতে বিভক্ত ইয়ারপুর ইউনিয়নে একটানা ৪৫ বছর (১৯৪৩-১৯৮৮) নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেন এবং ১৯৭৯ সালে সাভার আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন ১৯৭৪ সালে মোমেনশাহী ক্যাডেট কলেজে (বর্তমান নাম- মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ) ৭ম শ্রেণিতে ভর্তি হন। এই প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯৭৮ সালে এসএসসি এবং ১৯৮০ সালে এইচএসসি পাশ করেন। ১৯৮১ সালে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ভর্তি হন এবং ১৯৮৭ সালে এই প্রতিষ্ঠান থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। এখান থেকেই তিনি এক বছরের ইন্টার্নশীপ করেন।

দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন বিভিন্ন রকম খেলাধুলায় পারদর্শী ছিলেন এবং পুরস্কারও পেয়েছেন। ক্যাডেট কলেজ জীবনে তিনি ফুটবল, ভলিবল এবং বাস্কেটবল কলেজ টিমের নিয়মিত সদস্য ছিলেন। ইনডোর গেমসের মধ্যে ক্যারম খেলায় তার পারদর্শিতা বেশ প্রশংসনীয়। ডাঃ সালাউদ্দিন ১৯৮০ সালে মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের শ্রেষ্ঠ ক্রীড়াবিদ ছিলেন। মেডিকেল কলেজে তৃতীয় বর্ষ থেকে তিনি কলেজ ফুটবল টিমের নিয়মিত সদস্য হিসেবে আন্তঃমেডিকেল কলেজ ফুটবল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছেন। এ ছাড়াও মেডিকেল কলেজে পড়ার সময়ে বেশ কয়েক বছর ময়মনসিংহ প্রথম বিভাগ ফুটবললীগে ব্রাদার্স ইউনিয়নের পক্ষে নিয়মিত অংশগ্রহণ করেছেন।

ডাঃ দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন ১৯৯১ সালে দশম বিসিএস (স্বাস্থ্য) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ১১ ডিসেম্বর ১৯৯১ কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ১৯৯৩ সালের মার্চ মাসে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বদলি হয়ে আসেন। ১৯৯৬ সালের পহেলা জানুয়ারি তিনি সরকারি চাকুরি হতে স্বেচ্ছায় অব্যাহতি গ্রহণ করেন।

রাজনৈতিক ও কর্মজীবন

বাবার মৃত্যুর পর সরকারি চাকরি ছেড়ে রাজনীতিতে যুক্ত হন দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন। ১৯৯৪ সালে তিনি ইয়ারপুর ইউনিয়ন বিএনপি এবং ২০১১ সালে আশুলিয়া থানা বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালের ২৯ আগস্ট থেকে অদ্যাবধি তিনি ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

ডাঃ দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন ১২ জুন ১৯৯৬ (সপ্তম) এবং ১ অক্টোবর ২০০১ (অষ্টম) সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৯ আসন থেকে (সাভার) পর পর দুইবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের নবম এবং ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৯ আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন।

 

দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন । বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ

 

পারিবারিক জীবন

ডাঃ সালাউদ্দিন ১৯৯২ সালের ১৬ ফেব্রæয়ারি সাবিনা সিদ্দিকা রিতার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। স্ত্রী সাবিনা সিদ্দিকা রিতা চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয় থেকে পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশনে ¯œাতক (সম্মান) ও মাস্টার্স করেন। বড় সন্তান দেওয়ান ইদ্রিস শেহরান আনান (জন্ম ০৪-১২-১৯৯৬) আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস বিশ^বিদ্যালয়ে এমবিএ অধ্যায়নরত। ছোট ছেলে দেওয়ান ইদ্রিস মেহরান আফনান (জন্ম ০৯-১০-২০০৪) হোপ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল (টার্কিশ হোপ) থেকে ২০২২ সালে ‘ও’ লেভেল পরীক্ষা দেবে।

শিক্ষাক্ষেত্রে অবদান

ডাঃ দেওয়ান মোঃ সালাউদ্দিন ১৯৯৩ সালে সাভারের আশুলিয়া থানার অন্তর্গত শ্রীখÐিয়া গ্রামে মায়ের নামে ‘সালেহা ইদ্রিস প্রাথমিক বিদ্যালয়’ প্রতিষ্ঠা করেন যা পরবর্তীতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরিণত হয়। ১৯৯৬ সালে তিনি আশুলিয়া থানার অন্তর্গত নিজ গ্রামে বাবার নামে ‘জিরাবো দেওয়ান ইদ্রিস কলেজ’ (এমপিওভুক্ত) প্রতিষ্ঠা করেন।

২০০৩ সালে সাভার পৌরসভাতে ‘দেওয়ান ইদ্রিস ‘ল’ কলেজ’ (সরকার কর্তৃক অনুমোদন প্রাপ্ত) প্রতিষ্ঠা করেন। ২০০৬ সালে আশুলিয়া থানার অন্তর্গত নিশ্চিন্তপুর গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেন ‘নিশ্চিন্তপুর দেওয়ান ইদ্রিস উচ্চ বিদ্যালয়’ (এমপিওভুক্ত) । ডাঃ সালাউদ্দিন বাবু ২০০২ সালের মার্চ মাস থেকে লায়ন জেলা-৩১৫-এ১-এর আওতাধীন লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা সাভারের সদস্য হন (লায়ন্স মেম্বার নম্বর-১৯৪৪২৫)। ২০১০-২০১১ বর্ষে তিনি লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা সাভারের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এ ছাড়াও বিভিন্ন সময়ে ক্লাব মেম্বারশীপ চেয়ারপারসন, ক্লাব ডাইরেক্টর, ক্লাব এডমিনিস্ট্রেটর, জোন চেয়ারপারসন, রিজিওন চেয়ারপারসন, জেলা গভর্ণরের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৯ এবং ২০২০ এ তিনি অক্টোবর সেবা পক্ষের সদস্য সচিব হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তার নেতৃত্বে লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা সাভারের সদস্য সংখ্যা ইতোমধ্যে ১২৫-এ উত্তীর্ণ হয়েছে। ২০২১-২০২২ বর্ষে জেলা ৩১৫এ১-এর দ্বিতীয় ভাইস জেলা গভর্ণর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং বর্তমানে তিনি ২০২২-২০২৩ বর্ষে লায়ন জেলা ৩১৫এ১-এর প্রথম ভাইস জেলা গভর্ণর হিসেবে নির্বাচিত হন।

 

দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন । বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ

 

জেলজীবন:

২০১২ এবং ২০১৩ সালে সরকার কর্তৃক বিরোধীদলকে দমন পীড়নের অংশ হিসেবে তার নামে স্থানীয় থানায় একাধিক মামলা করা হয়। হাইকোর্ট থেকে জামিন পেলেও নির্দিষ্ট সময়ে নি¤œ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে জামিন বাতিল করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। ২০১৫ সালের ২৫ অক্টোবর আবারও সাজানো মামলায় তার নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করে তাকে ১০দিনের রিমান্ডে নেবার পর জেলে পাঠানো হয়। ২০১২ সালে ১৮ দিন, ২০১৩ সালে ১০৮ দিন, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে ১১৬ দিন- সব মিলিয়ে ২৪২দিন তাকে জেলে থাকতে হয়েছিল।

বইপড়া এবং ভ্রমণ ডাঃ সালাউদ্দিনের অন্যতম শখ। ১৯৯২ সাল থেকে শুরু করে অদ্যাবধি তিনি ৩২টি দেশের দুই শতাধিক শহরে একাধিকবার ভ্রমণ করেছেন। এ ছাড়াও নানা কারণে নানা প্রয়োজনে বাংলাদেশের প্রায় অধিকাংশ জেলাতেই তিনি ভ্রমণ করেছেন। ২০১৮ সাল থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত তার ১০টি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। বইগুলো হলো- ‘জেলখানার ভেতর বাহির, আমার জেল আমার ঘর, জেল জীবনের কথা, আলো আধাঁরের জেলখানা, Jail, my home, স্মৃতিতে আমেরিকা, সাগর পাড়ে দ্বীপ শহরে, বাবার ছায়ায় বেড়ে ওঠা, এক জীবনে আমি (আত্মজীবনী) এবং আবারও আমেরিকায়।

আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন