নিজেকে কুকুর সাজিয়ে স্বপ্নপূরণ

This post is also available in: বাংলাদেশ

নিজেকে কুকুর সাজিয়ে স্বপ্নপূরণ, মানুষের কত কিছুই না শখ থাকে , স্বপ্ন থাকে। আর সসেসব পুরণ করার চেষ্টাও থাকে অনেক । জাপানে এক লোকের ‘আজীবনের স্বপ্ন ও শখ’ ছিল তিনি যে কোনো প্রাণীর মতো সাজবেন। অবশেষে তাঁর এই ইচ্ছা পূরণ হয়েছে। তবে ব্যায় করতে হয়েছে তাকে অনেক পরিমান অর্থ । তাঁর ইচ্ছা ছিল তিনি সাজবেন কুকুর। আর ওই ব্যক্তি তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টে কুকুর সেজে তোলার কিছু ছবি পোস্ট করেছেন। জেপেট নামের একটি পেশাদার সংস্থা তাঁর এই ইচ্ছা পূরণে সাহায্য করেছে।

 

নিজেকে কুকুর সাজিয়ে দেখার স্বপ্নপূরণ খরচ পড়ে ১৪ লাখ টাকা

 

নিজেকে কুকুর সাজিয়ে স্বপ্নপূরণ

 

টুইটার পোস্ট অনুযায়ী ওই ব্যক্তির নাম তোকো। তিনি কুলি নামের একটি প্রজাতির কুকুরের বেশ ধারণ করেছিলেন। কুলি প্রজাতির দীর্ঘ লোমশের কুকুর স্কটল্যান্ডে দেখতে পাওয়া যায়। এই কুলি প্রজাতির কুকুর বিষয়ে তোকোর কাছে জানতেও চেয়েছিল নিউজ মিনাভি। তখন তোকো বলেন, ‘আমি কুলি বেছে নিয়েছি। কারণ, এটা দেখতে প্রকৃত কুকুরের মতো লাগে। চতুষ্পদ প্রাণী আমার খুব পছন্দ। আমি এটা ভেবেছিলাম যে বড় প্রাণী হলে আমার জন্য সুবিধা। তাই আমি কুকুরের আদলে পোশাক তৈরির সিদ্ধান্ত নিই। কুলির মধ্যে এসব থাকায় আমি কুলির মতো পোশাক তৈরি করতে চাই। আমার প্রিয় কুকুরের রূপ ধারণ করতে চাই।’

তোকোকে জিজ্ঞেস করা হয়, কুকুরের এই পোশাক পরে তিনি তাঁর অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ইচ্ছেমতো নড়াচড়া করতে পারেন কি না? জবাবে তোকো বলেন, ‘অবাধে অঙ্গ নাড়াতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে ইচ্ছেমতো নাড়ানো যায়। আবার বেশি নড়াচড়া করলে সেটা কুকুরের মতো দেখাবে না।’

জাপানের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ মিনাভি এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হচ্ছে, জেপেট সিনেমা, বিজ্ঞাপন, পার্কের জন্য অনেকগুলো ভাস্কর্য সরবরাহ করে। জাপানে জনপ্রিয় মাসকট চরিত্রে যাঁদের অভিনয় করতে দেখা যায়, সেসব অভিনেতার জন্যও বিশেষ ধরনের পোশাক তৈরি করে থাকে জেপেট।

 

 

নিজেকে কুকুর সাজিয়ে স্বপ্নপূরণ

আর প্রাণীর (কুকুর) বেশ ধারণের জন্য এ জেপেটেরই সাহায্য নিয়েছেন জাপানি ওই ব্যক্তি। তাঁর জন্য কুকুরের বেশ ধরা যায়, এমন একটি পোশাক বানানোর কথা বলেন তিনি। এর জন্য খরচ পড়ে ২০ লাখ ইউয়ান। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১৪ লাখ টাকা। আর ওই পোশাক তৈরি করতে জেপেটের মোট ৪০ দিন সময় লেগেছে।

তোকোর শেয়ার করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, আকারে বড়সড় লোমশ ‘কুকুর’টি একটি কক্ষে বসে আছে। প্রথমে সামনের ডান পা নাড়াচ্ছে (আদতে তোকোর ডান হাত), এরপর সামনের বাঁ পা নাড়াচ্ছে। একপর্যায়ে ‘প্রাণীটি’ আধশোয়া হচ্ছে, আলতোভাবে চিৎ হচ্ছে, একটু গড়াগড়ি খাওয়ার মতো ভঙ্গিমা করছে। পুরো সময় থেমে থেমে ‘কুকুর’টিকে একটু একটু করে মুখ খুলতে ও বন্ধ করতে দেখা গেছে। তবে ভিডিওতে একটু খেয়াল করলেই দেখা যাচ্ছে, তোকোর গায়ে জড়ানো কুকুরের ওই পোশাকে যে চোখ লাগানো, তা দেখতে আসলের মতো নয়। ১ মিনিট ২৯ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে একবারের জন্যও ‘কুকুর’টিকে চোখের পলক ফেলতে দেখা যায়নি। আর কুকুরের বেশে থাকা তোকোর পুরো নড়াচড়া ছিল অনেকটা ভালুকের মতো।

 

নিজেকে কুকুর সাজিয়ে স্বপ্নপূরণ

 

আরও দেখুনঃ

This post is also available in: বাংলাদেশ

মন্তব্য করুন