ভয়াল ২৫ শে মার্চর ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট

This post is also available in: বাংলাদেশ

ভয়াল ২৫ শে মার্চর ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট, অপারেশন সার্চলাইট ১৯৭১সালে ২৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়া পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত পরিকল্পিত গণহত্যা, যার মাধ্যমে তারা ১৯৭১ এর মার্চ ও এর পূর্ববর্তী সময়ে সংঘটিত বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে দমন করতে চেয়েছিল।

ভয়াল ২৫ শে মার্চর ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট

 

ভয়াল ২৫ শে মার্চর ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট

 

অপারেশন সার্চলাইট কীভাবে পরিকল্পিত হয়, ১৯৭১ সালের সে স্মৃতিচারণা করে খাদিম হোসেন রাজা লিখেছেন, ‘১৭ মার্চ, সকাল প্রায় ১০টা বাজে। টিক্কা খান আমাকে ও মেজর জেনারেল ফরমানকে কমান্ড হাউসে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে খবর পাঠান। খবর পেয়ে আমরা দুজন টিক্কা খানের সঙ্গে দেখা করি। গিয়ে দেখি, সেখানে জেনারেল আবদুল হামিদ খানও রয়েছেন। টিক্কা খান আমাদের বলেন, প্রেসিডেন্টের সঙ্গে শেখ মুজিবের সমঝোতা আলোচনা ইতিবাচক দিকে এগোচ্ছে না। প্রেসিডেন্ট চান আমরা যেন সামরিক অভিযানের প্রস্তুতি নিই এবং সে অনুযায়ী একটা পরিকল্পনা তৈরি করি। এ ছাড়া আর কোনো মৌখিক বা লিখিত নির্দেশনা আমরা পাইনি। আমাদের বলা হয়, পরদিন ১৮ মার্চ বিকেলে আমরা দুজন যেন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে ওই পরিকল্পনা চূড়ান্ত করি।’

পরদিন সকালেই খাদিম হোসেন রাজা তাঁর কার্যালয়ে রাও ফরমান আলীকে নিয়ে বসেন। তাঁরাই গণহত্যার এ অভিযানের নাম দেন অপারেশন সার্চলাইট।গণহত্যা থেকে বিজয় পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধ পার হয়েছে বহু জটিল পথ। আনন্দ-বেদনাময় সে পথরেখার চিহ্ন ধরা আছে রাশি রাশি নথিপত্রে। নির্বাচিত কিছু নথির মধ্য দিয়ে আমরা দেখব মহত্তম সেই সময়টিকে।

খাদিম হোসেন রাজা লিখেছেন, ‘(পরিকল্পনা হলো) ফরমান ঢাকা সেনানিবাসের অভিযান তত্ত্বাবধান করবেন আর আমাকে দেওয়া হবে এর বাইরে গোটা প্রদেশের দায়িত্ব। এরপর অভিযানের ভূমিকা আর ঢাকায় কী করে অপারেশন চলবে, তা ফরমান লিখলেন।…আগের আয়োজন অনুযায়ী, আমরা আবার ১৮ মার্চের বিকেলে কমান্ড হাউসে মিলিত হই। সেখানে চূড়ান্তভাবে, আমি প্রস্তাব ও পরিকল্পনা উপস্থাপন করি। কোনো আলোচনা ছাড়াই এই পরিকল্পনা অনুমোদন করা হয়।’

 

ভয়াল ২৫ শে মার্চর ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট

 

অপারেশন সার্চলাইট সম্পর্কে জেনারেল খাদিম হোসেন রাজার দেওয়া তথ্য তাঁরই জবানিতে নিচে দেওয়া হলো।

১. যেকোনো অভ্যুত্থানকে সরাসরি বিদ্রোহ হিসেবে দেখা হবে এবং কঠোর হাতে দমন করা হবে।

২. সফলতা নিশ্চিত করার জন্য চমক ও ধোঁকার গুরুত্ব অপরিসীম। প্রেসিডেন্টকে আমরা এই চাতুরীতে শরিক হতে ও সহায়তা করতে প্রস্তাব করি।

৩. পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাঙালি সৈন্য ও পুলিশকে নিরস্ত্র করতে হবে। বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ ছিল বিদ্রোহীদের মধ্যে বিতরণের আগেই পিলখানায় ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস, রাজারবাগে রিজার্ভ পুলিশের অস্ত্রাগার এবং চট্টগ্রামের অস্ত্রাগারে থাকা ২০ হাজার রাইফেলের দখল নেওয়া।

৪. অপারেশনের শুরুতে বাইরের ও ভেতরের সব ধরনের যোগাযোগব্যবস্থা বন্ধ করে দিতে হবে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে এনে আবার তা চালু করা হবে।

৫. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসগুলো ঘিরে ফেলতে হবে। অস্ত্র ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের খুঁজে বের করতে হবে।

৬. শেখ মুজিবকে জীবিত ধরতে হবে। আওয়ামী লীগ ও কমিউনিস্ট পার্টির প্রায় ১৫ জন নেতার বাড়ি তল্লাশি করতে হবে। তাঁদের পাওয়া গেলে গ্রেপ্তার করতে হবে।

আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে পৌঁছানোর সব আশা শেষ হয়ে এল। একাত্তরের ২৫ ও ২৬ মার্চের মধ্যরাতে আমাকে অপারেশন সার্চলাইট কার্যকর করার নির্দেশ দেওয়া হলো। ২৫ মার্চ দুপুরের পরপরই সংকেত দেওয়া হলো, ‘অগ্রসর হও’।

 

ভয়াল ২৫ শে মার্চর ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট

 

আরও দেখুনঃ

This post is also available in: বাংলাদেশ

মন্তব্য করুন