শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা [ Today’s Thoughts on Education ] – আহমদ শরীফ [Ahmed Sharif ]

This post is also available in: বাংলাদেশ

শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা [ Today’s Thoughts on Education ] – আহমদ শরীফ [Ahmed Sharif ] : শিক্ষাপদ্ধতি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গোটা জাতির স্বার্থ জড়িত। এবং জাতীয় জীবনে শিক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আর কিছুই নেই। কেননা আজ অবধি মানুষের জীবন-জীবিকা প্রকৃতপক্ষে শিক্ষিত লোকেরাই নিয়ন্ত্রণ করে। নিরক্ষরতার যুগেও সামাজিক প্রয়োজনে মৌখিকভাবে ও ঘরোয়া পরিবেশে ‘লোকশিক্ষা’র ব্যবস্থা চালু ছিল। এই ‘লোকশিক্ষা’র বিষয় ছিল নৈতিক, বৈষয়িক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও শাস্ত্রীয় আচরণসংপৃক্ত রীতি-পদ্ধতি ও আচার-পার্বণ সম্বন্ধীয় নীতি-রেওয়াজ।

 

শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা - আহমদ শরীফ
শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা – আহমদ শরীফ

 

ছড়া, প্রবাদ, প্রবচন, আপ্তবাক্য, ইতিকথা, রূপকথা ও কিংবদন্তী প্রভৃতির মাধ্যমে লোকায়ত ও গৃহগত বিশ্বাস-সংস্কার, দায়িত্ব-কর্তব্যবোধ, ন্যায়-অন্যায় জ্ঞান, আদর্শ-উদ্দেশ্য চেতনা প্রভৃতি প্রচারিত ও প্রচলিত থাকত। পুরুষানুক্রমে মুখে মুখে ও কানে কানে চালু থাকত শাস্ত্র সমাজ-রোগ-চিকিৎসা প্রভৃতি জীবন-জীবিকাসংপৃক্ত সর্বপ্রকার শিক্ষা। এসব শিক্ষায় যারা জ্ঞানী-গুণী ও অভিজ্ঞ হত, তারাই থাকত দলপতি বা সমাজপতি-সর্দার। আজো অজগাঁয়ে কিংবা আরণ্যমানবে তা বিরল নয়। নিরক্ষরতার যুগে অভিজ্ঞ প্রধান ব্যক্তিমাত্রই ছিল শ্রদ্ধেয়, মান্য ও উপদেষ্টা। রূপকথার রাজ্যে সঙ্কটকালে তাই অবসরপ্রাপ্ত বুড়ো মন্ত্রীর ডাক পড়ত সঙ্কটত্রাণের উপায় বাতলে দেয়ার জন্য।

নিরক্ষরতার যুগে অভিজ্ঞতাই ছিল নির্ভরযোগ্য বিশেষজ্ঞ বা প্রজ্ঞাবান জ্ঞানী হবার উপায়। নিজের জীবনের ঘটনা থেকে শেখার নাম অভিজ্ঞতা আর অন্যের অভিজ্ঞতা জেনে শেখার নাম জ্ঞান। ব্যক্তির সীমিত জীবনে অভিজ্ঞতাও থাকে সীমিত ও স্বল্প। কেবল উদ্যমশীল দুঃসাহসী পর্যটকের অভিযাত্রীর জীবনেই বহুদর্শিতালব্ধ অভিজ্ঞতা কুচিৎ বহু ও বিচিত্র হত। সেরকম অনন্য মানুষও ছিল দুর্লভ।

হরফ আবিষ্কৃত হওয়ার পরে লেখার মাধ্যমে পরের বিভিন্ন বিষয়ক সর্বপ্রকার অভিজ্ঞতা জেনে নিয়ে জ্ঞানী হওয়ার পথে উৎসুক মানুষের আর কোনো বাধা রইল না। আর কে না-জানে জ্ঞানই শক্তি! এই জ্ঞান দিয়েই আমরা জগৎকে জানি, জীবনকে বৃঝি, সমাজ গড়ি, জীবিকা সংগ্রহ করি, জীবনের স্বাচ্ছন্দ্য-সাচ্ছল্য-সুখ সৃষ্টি করি। এ লক্ষ্যেই তৈরি হয়েছে শাস্ত্র-সমাজ-রাষ্ট্র-সংস্কৃতি-সভ্যতা সবকিছু। জীবন-জীবিকা সম্বন্ধে জ্ঞান লাভ করে জীবনে নির্বিঘ্নে চলার পাথেয় তথা যোগ্যতা অর্জন করার সাধারণ নাম। শিক্ষা। অতএব সাধারণভাবে শিক্ষিত জ্ঞানীরই নামান্তর মাত্র। যেহেতু জ্ঞানই শক্তি, সেহেতু মানুষের ব্যক্তিক, ঘরোয়া, পারিবারিক, সামাজিক, আর্থিক, নৈতিক, সাংস্কৃতিক, ধার্মিক, নাগরিক, ও রাজনীতিক জীবন দুনিয়ার সর্বত্র শিক্ষিত মানুষের নেতৃত্বে ও কর্তৃত্বে নিয়ন্ত্রিত হয়।

 

আহমদ শরীফ, Ahmed Sharif, educationist, philosopher, critic, writer and scholar of medieval Bengali literature
আহমদ শরীফ, Ahmed Sharif, educationist, philosopher, critic, writer and scholar of medieval Bengali literature

 

এ শিক্ষা বা জ্ঞান যদি ত্রুটিপূর্ণ হয়, তাহলে মানুষ হয় অমানুষ। তখন জীবনে সমাজে-রাষ্ট্রে নেমে আসে বিপর্যয়। অর্থাৎ বিদ্যার সঙ্গে বুদ্ধির, জ্ঞানের সঙ্গে প্রজ্ঞার, বোধের সঙ্গে বিবেকের উদ্যোগের সঙ্গে আয়োজনের উদ্দেশ্যের সঙ্গে আদর্শের, কর্মের সঙ্গে নীতির, দায়িত্বের সঙ্গে চরিত্রের, কর্তব্যের সঙ্গে সদিচ্ছার, সেবার সঙ্গে সততার, ত্যাগের সঙ্গে তিতিক্ষার, ভোগের সঙ্গে সংযমের আনুপাতিক সংযোগ সামঞ্জস্য না ঘটলে বিদ্যা-বৃদ্ধি-জ্ঞান-কর্মনিষ্ঠা যে জীবনে সমাজে-সংসারে বিপর্যয় ঘটিয়ে বহু দুঃখের আকর হয়ে দাঁড়ায়, আজকের অনগ্রসর রাষ্ট্রগুলোতে শিক্ষিত লোকের চরিত্রহীনতা/প্রসূত দুর্নীতি বাহুল্যই তার সাক্ষ্য।

নির্ধন-নিরক্ষর-নিঃস্ব-নিঃসহায় কোটি কোটি মানুষ দুনিয়ার অনগ্রসর, অনুন্নত দেশগুলোতে বিবেকবর্জিত শাসক প্রশাসক-শাস্ত্রী-সার্থবাহনদের শাসন-শোষণ-পেষণ-পীড়ন-নির্যাতনের প্রভাব প্রতাপের শিক্ষার রূপে অমানবিক জীবনযাপনে বাধ্য হয়ে অকালে অপমৃত্যুর কবলে পড়ে। অশেষ সম্ভাবনাময় জীবনে বিকাশের বিস্তারের, আনন্দের, অবদানের ও উপভোগের দিগন্তদুয়ার থাকে চিররুদ্ধ। এমনি করে দুর্লভ মানবজীবন হয় অপচিত ও অবসিত।

প্রীতিহীন হৃদয়, প্রত্যয়হীন কর্ম এবং বিবেকবিরহী বিচার যে বন্ধ্যা, তা যে নিজের কিংবা পরের কোনো কল্যাণ করতে অসমর্থ, শিক্ষার মাধ্যমে এই গুরুত্বপূর্ণ চেতনাদানই শিক্ষার মৌল লক্ষ্য হওয়া আবশ্যিক। মানুষ এমনি শিক্ষা না-পেলে মানবিক সমস্যার সমাধান হওয়া অসম্ভব।

আজকাল শিক্ষার অর্থকর উৎপাদন-যোগ্যতার তথা বৃত্তিমূলকতার উপর গুরুত্ব দেয়া হয়। কিন্তু উদ্দেশ্যবিহীন কর্ম যেমন নিষ্ফল, তেমনি চরিত্রবর্জিত শিক্ষিত মানুষও সমাজের দায় সম্পদ নয়। কেননা তার চিন্তা ও কর্ম বহুজনহিত ও বহুজন সুখ-লক্ষ্যে নিয়োজিত হয় না। তাই আমরা শিক্ষার নৈতিকতা ও বৃত্তিমূলকতার সহস্থিতি আবশ্যিক বলে মানি। কিন্তু কেবল শিক্ষায়তনে শেখা নীতিকথায় মানুষের চরিত্র গড়ে ওঠে না। তাছাড়া জ্ঞান শক্তি দেয়, চরিত্র গড়ে না।

 

শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা - আহমদ শরীফ
শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা – আহমদ শরীফ

 

চরিত্র গঠিত হয় পারিবারিক পরিবেশে। আজ আমাদের শিক্ষালয়গুলো নৈতিক দৈন্যপ্রসূত দুর্নীতি ও অরাজক উচ্ছৃঙ্খলার আকরও বটে, কিন্তু তা’ বিদ্যালয়ের দোষে নয়—পারিবারিক ঘরোয়া পরিবেশে ও সমাজ প্রতিবেশে নৈতিক ও চারিত্রিক মূল্যবোধের প্রেরণা পায় না বলেই। ব্রিটিশ-শাসনের অবসানে প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে শিক্ষিত উঠতি মধ্যবিত্ত বয়স্ক মানুষেরা লাভের-লোভের প্রায় নির্দ্বন্দ্ব-নির্বিঘ্ন সুযোগ পেয়ে চরিত্র হারায়। সেই দুষিত ঘরোয়া ও সামাজিক প্রতিবেশে যারা মানুষ হল তারাও আবার একটি বিপ্লবের নয়, আকস্মিক বিপর্যয়ের সুযোগে নৈতিক-চারিত্রিক ক্ষেত্রে শিথিল-শাসনের প্রশ্রয়ে শঙ্কা-সঙ্কোচ-শরম পরিহার করে উচ্ছৃঙ্খল হয়ে ওঠে।

পাপ-নিন্দা-অপরাধ-চেতনাবিরহী এই মানুষকে নীতি ও নিয়মনিষ্ঠ করে তেমন সাধ্য কারুর বা কিছুর নেই। কাজেই আজকের পরিস্থিতির জন্য কেবল শিক্ষক, ছাত্র, সরকার, অভিভাবক দায়ী নয়, প্রত্যক্ষে ও পরোক্ষে দায়ী গোটা শিক্ষিতসমাজ। অতএব আমাদের নৈতিক-শৈক্ষিক-সামাজিক বিপর্যয় আকস্মিকও নয়, অহেতুকও নয়— কাজেই অভাবিত নয়। মূল্যবোধেরই অপর নাম যে সংস্কৃতি—সেকথা আমরা কখনো মনে রাখিনি। তাই এ পরিণাম!

এই দুর্নীতি ও অরাজক বুনো পরিস্থিতির প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্রভাবে আজ দেশের সামগ্রিক জীবন-প্রবাহ বিশৃঙ্খল-বিপর্যস্ত। গোটা জাতির ঘরোয়া, সামাজিক, নৈতিক, আর্থিক, বাণিজ্যিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক জীবন আজ কলুষিত, বিক্ষত, বিষাক্ত ও অনিশ্চিত। জাতীয় জীবনে এরচেয়ে দুর্যোগ-দুর্দিন আর কিছুই হতে পারে না। আজ দেশের মানুষের চরিত্রহীনতাই সমাজের সর্বস্তরে মূল সমস্যা, প্রায় অধিকাংশ দুঃখের আকর বা উৎস।

সারাদেশের এ সমস্যার সমাধানের শক্তি সামর্থ্য অধিকার কিংবা উপায় আমাদের নেই। তবে সচেতন নাগরিক হিসেবে ‘স্ব’-এর ও স্ব-জনের হিতে অন্তত আমরা ঘরোয়া, সামাজিক ও বৈষয়িক জীবনে স্ব-স্ব এলাকায় যদি নীতি ও নিয়মনিষ্ঠ হই এবং সাহস করে বিপদের ঝুঁকি নিয়ে অন্যের দুর্নীতি ও অপকর্মে সাধ্য ও সুযোগমতো নৈতিক কিংবা বৈধ বাধা সৃষ্টির চেষ্টা করি, তাহলে নেহাত নিষ্ক্রিয়তার গ্লানি, মূল্যবোধহীনতার লজ্জা এবং বিবেকের দংশন থেকে রেহাই পেতে পারি।

 

[ শিক্ষা সম্বন্ধে আজকের ভাবনা – আহমদ শরীফ ]

 

আরও পড়ুন:

This post is also available in: বাংলাদেশ

মন্তব্য করুন