সরকারি তথ্যবিবরণী [ ১৬১০ – ১৫৩৫ ] – তথ্য অধিদফতর

This post is also available in: বাংলাদেশ

সরকারি তথ্যবিবরণী [ ১৬১০ – ১৫৩৫ ] – তথ্য অধিদফতর

 

সরকারি তথ্যবিবরণী - তথ্য অধিদফতর
সরকারি তথ্যবিবরণী – তথ্য অধিদফতর

Table of Contents

তথ্যববিরণী নম্বর : ১৬১০

আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে স্টার্টআপের সিড মানি প্রদান শুরু

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :
দেশে প্রযুক্তিনির্ভর নতুন উদ্যোগ ও উদ্ভাবন প্রতিষ্ঠায় ‘শতবর্ষে শত আশা’ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৫০টি উদ্যোগকে ১০০ কোটি টাকার তহবিল সহযোগিতা দেয়ার কার্যক্রম শুরু করেছে আইসিটি বিভাগ। এ বিষয়ে আজ আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারের বিসিসি মিলনায়তনে আইসিটি বিভাগের বাংলাদেশ স্টার্টআপ কোম্পানি লিমিটেড ও উদ্যোক্তাদের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী।

ভার্চুয়াল মাধ্যমে যুক্ত হয়ে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মোস্তফা তুরান, কোরিয়ান কোম্পানি ইয়াংওয়ান কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কিহাক সাঙে, ইউএস মার্কেট অ্যাকসেসের প্রেসিডেন্ট ক্রিস বেরি, লাইট ক্যাসেলের সিইও বিজন ইসলাম।

Startup firms fetch tk 150m 01 04 2021 সরকারি তথ্যবিবরণী [ ১৬১০ - ১৫৩৫ ] - তথ্য অধিদফতর

 

এ সময় চালডাল ডটকম, পাঠাও, সেবা এক্সওয়াই জেড, ইন্টিলিজেন্স মেশিন, এড্যু হাইভ, ঢাকা কাস্ট ও মনের বন্ধু—এ সাতটি স্টার্ট আপের সাথে বাংলাদেশ স্টার্ট আপ কোম্পানি লিমিটেডের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক সিড মানি হিসেবে ১৫ কোটি টাকার মূলধন সহযোগিতা দেয়ার মধ্য দিয়ে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ‘শতবর্ষে শত আশা’ ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশকে বাস্তবে রূপ দিতে ধাপে ধাপে মানবসম্পদ উন্নয়ন, ইউনিয়ন পর্যন্ত ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ, আইসিটি বিষয়কে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বাধ্যতামূলক করাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময়োপযোগী ও কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে গত ১২ বছরে দেশের আইসিটি খাত একটি শক্তিশালী ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে। তিনি আরও বলেন প্রতিবছর প্রায় ২০ লক্ষ তরুণ—তরুণী কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করছে। তাদেঁর কর্মসংস্থানে আওয়ামী লীগ সরকার আন্তরিকতার সাথে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

‘শতবর্ষে শত আশা’ ক্যাম্পেইন বৈশ্বিক অর্থনীতিতে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই উদ্যোগ দেশে একটি জাতীয় উদ্যোক্তা প্লাটফর্ম তৈরি করবে এবং নতুন নতুন উদ্ভাবন বাস্তবায়নে গতি সঞ্চালন করবে। তিনি আরও বলেন, এর ফলে সম্ভাবনাময় কোনো উদ্যোগই আর ঝড়ে পড়বে না ও উদ্যোগ বাস্তবায়নের আর্থিক সঙ্কট ঘুচবে এবং নতুন নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে। তিনি বলেন, মানুষের মেধাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় সম্পদ। স্টার্টআপ বাংলাদেশ কোম্পানি থেকে ফান্ড পেতে কোন জামানত বা পুজির দরকার হবে না। এখানে বিনিয়োগ পেতে দরকার হবে মেধাসম্পদ। তিনি জুম, নেটফ্লিক্স ও ইউটিউবের মতো ডিজিটাল প্লাটফর্ম তৈরি করতে তরুণ উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী এবং স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের উপলক্ষে নেয়া ‘শতবর্ষে শত আশা’ উদ্যোগটি নতুন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে ভিন্নমাত্রা যোগ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

#
শহিদুল/মাসুম/রেজুয়ান/রফিকুল/জয়নুল/২০২১/২২৪০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৬০৯

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন —— সমাজকল্যাণমন্ত্রী

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :
সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক সময়ের অচেনা বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে তিনি বাস্তবায়নের পথে দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। সারা বিশ্বের মানুষ অবাক হয়ে দেখছে যে, এক সময়ের হতদরিদ্র বাংলাদেশ কিভাবে এত সমৃদ্ধি অর্জন করেছে।

নুরুজ্জামান আহমেদ, সমাজকল্যাণমন্ত্রী
নুরুজ্জামান আহমেদ, সমাজকল্যাণমন্ত্রী

 

মন্ত্রী আজ জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র কর্মকর্তা—কর্মচারী সোসাইটি আয়োজিত ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সেবায় নিয়োজিত সেবকদের সেবার মান উন্নয়ন ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আনিছুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশরাফ আলী খান খসরু।

মন্ত্রী বলেন, যে বাংলাদেশ সম্পর্কে বিশ্ব জানতো এদেশের মানুষ বিদেশি সাহায্যের ওপর নির্ভর করে, তারা চেয়ে থাকতো কখন বিদেশি সাহায্য আসবে, আমাদেরকে তাচ্ছিল্য করে যারা তলাবিহীন ঝুড়ি বলেছিলো, সেই তলাবিহীন ঝুড়ির দেশকে প্রধানমন্ত্রী উপচে পড়া ঝুড়ির দেশে পরিণত করেছেন।

তিনি আরো বলেন, এই পরাধীন জাতিকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। সারা বিশ্বে বাঙালি জাতিসত্তার মর্যাদা বৃদ্ধি করে গেছেন। ১৯৭৫ সালে স্বাধীনতা বিরোধীরা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে স্বাধীনতার চেতনাকে নস্যাৎ করতে চেয়েছিলেন। যে ষড়যন্ত্র তারা করেছিল সে ষড়যন্ত্র বাস্তবায়িত করতে পারেনি।

মন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় বিশ্ব নেতৃত্বের উচ্ছ্বসিত প্রশংসার কথা উল্লেখ করে বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেছেন, বাংলাদেশ কিভাবে এত অল্প সময়ের মধ্যে উন্নয়নের উচ্চ শিখরে উন্নীত হয়েছে। আজকে বিশ্ব বরেণ্য নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রীর অবদানকে বিস্ময়ের সাথে দেখে, এ অপ্রত্যাশিত উন্নয়ন কিভাবে সম্ভব করলেন, তা জানার আগ্রহ দেখাচ্ছে।
#

জাকির/মাসুম/রেজুয়ান/রফিকুল/রেজাউল/২০২১/২২২২ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৬০২

বিদেশ প্রত্যাগত ৩ হাজার নারী কর্মীকে বিশেষ আর্থিক প্রণোদনা প্রদান কার্যক্রম উদ্বোধন

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিদেশ প্রত্যাগত নারী কর্মীদের বিশেষ আর্থিক প্রণোদনা দিয়েছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড।

আজ রাজধানীর ইস্কাটন গার্ডেনস্থ প্রবাসী কল্যাণ ভবনের বিজয়’৭১ মিলায়নতনে প্রধান অতিথি হিসেবে ৭০ জন বিদেশ প্রত্যাগত নারী কর্মীর হাতে ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তার চেক তুলে দিয়ে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ। সভায় ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক মোঃ হামিদুর রহমান সভাপতিত্ব করেন।

ইমরান আহমদ, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী
ইমরান আহমদ, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী

 

মন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে করোনাকালীন বিদেশ প্রত্যাগত নারী কর্মীদের স্বাবলম্বী হতে এই বিশেষ আর্থিক সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। আত্মকর্মসংস্থানের জন্য ফলপ্রসূ ও লাভজনক খাতে বিনিয়োগের জন্য এই প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে। করোনাকালীন ৫০ হাজার নারী কর্মী দেশে ফেরত আসার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এর মধ্যে যাদের প্রয়োজন তাদের বাছাই করে এই বিশেষ সহায়তা দেওয়া হবে। এ কার্যক্রমের আওতায় প্রাথমিকভাবে ৩ হাজার প্রত্যাগত নারী কর্মীকে এই বিশেষ সহায়তা দেয়া হবে।

মন্ত্রী বলেন, করোনাকালীন ফেরত আসা কর্মীদের পুনর্বাসনে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ১৪৬ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। মুজিবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রবাসী কর্মীদের কল্যাণে নতুন নতুন উদ্যাগ গ্রহণ করা হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী জানান, বিদেশ যাওয়া—আসার সময় তাদের সাময়িক অবস্থানের জন্য বিমানবন্দরের নিকটবর্তী এলাকায় ডরমেটরি ও ব্রিফিং সেন্টার নির্মাণ করা হবে। এছাড়া স্বল্প ব্যয়ে স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের লক্ষ্যে একটি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, কোভিড—১৯ এর নেতিবাচক অভিঘাতে অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশের বৈদেশিক কর্মসংস্থান খাতও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ কারণে যে সকল নারী কর্মী দেশে ফেরত এসেছেন, তাদের আত্মকর্মসংস্থান ও পুনর্বাসনেই আমাদের এই উদ্যোগ। গ্রহীতারা এই আর্থিক প্রণোদনার সর্বোচ্চ সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
#
রাশেদুজ্জামান/মাসুম/রেজুয়ান/রফিকুল/জয়নুল/২০২১/১৯৪৫ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৬০১

দেশবাসীকে বাসযোগ্য পরিবেশ উপহার দিতে সরকার কাজ করছে —— পরিবেশ মন্ত্রী

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন বলেছেন, দেশের পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখা, জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলাসহ সার্বিক পরিবেশ উন্নয়নপূর্বক দেশবাসীকে বাসযোগ্য পরিবেশ উপহার দিতে পরিবেশ মন্ত্রণালয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। জনগণের কল্যাণে গৃহীত এ প্রকল্পগুলো গুণগতমান বজায় রেখে যথাসময়ে বাস্তবায়ন করার জন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান।

মন্ত্রী আজ মন্ত্রণালয়ের ২০২০—২১ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় ভার্চুয়ালি যোগদান করে সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। পরিবেশ উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার ও সচিব জিয়াউল হাসান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

মোঃ শাহাব উদ্দিন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী
মোঃ শাহাব উদ্দিন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী

 

পরিবেশ উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, কোভিড—১৯ সংক্রমণকালে কিছু কার্যক্রম ব্যহত হলেও যে সকল প্রকল্পে পুকুর খনন ও বিভিন্ন ধরনের নির্মাণ কাজ আছে তা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালিয়ে যেতে হবে। উপমন্ত্রী এসময় বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেইঞ্জ ট্রাস্ট ফান্ডের অর্থায়নে চলমান প্রকল্পের গুণগত মান বজায় রাখার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান।

সভায় জানানো হয়, সুফল প্রকল্পের আওতায় বিগত ২০১৮—১৯ ও ২০১৯—২০ অর্থবছরে পাহাড়ীবন এলাকায় ১০ হাজার ৯৩৪ হেক্টর, শালবন এলাকায় ৩ হাজার ৪২৪ দশমিক ৫০ হেক্টর, উপকূলীয় এলাকায় ৪ হাজার ৬১০ হেক্টর বনায়ন করা হয়েছে। এছাড়া, ১ হাজার ৪৯৬ কিলোমিটার স্ট্রিপ বনায়ন ও ৬১০ কিলোমিটার গোলপাতা বনায়ন করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে দেশের ১৬৫টি উপজেলায় ৩৩ দশমিক ৫৪ লাখ চারা—সহ মোট ৫১ লাখ ৩১ হাজার চারা বিতরণ করা হয়েছে।

সভায় আরো জানান, চলতি ২০২০—২০২১ অর্থবছরে ইতোমধ্যে উপকূলীয় এলাকায় ৬ হাজার ৩২০ হেক্টর ম্যানগ্রোভ বনায়ন করা হয়েছে। এছাড়া পাহাড়ীবন এলাকায় ১০ হাজার ১০৯ হেক্টর, শালবন এলাকায় ২ হাজার ৮২১ হেক্টর এবং উপকূলীয় এলাকায় ৯৪০ হেক্টর, ৭২০ কিলোমিটার স্ট্রিপ বনায়ন ও ৬৫০ কিলোমিটার গোলপাতা বনায়নের জন্য নার্সারি উত্তোলন করা হয়েছে।

প্রকল্পের আওতায় সাইট—স্পেসিফিক প্লানিং (এসএসপি) প্রণয়ন, স্থানীয় প্রজাতির সংমিশ্রণে বাগান সৃজন, বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল ও করিডোর উন্নয়ন, বিরল ও সংকটাপন্ন প্রজাতির বনায়ন, বিদেশি ও আগ্রাসী প্রজাতি নিরুৎসাহিতকরণ এবং বন ব্যবস্থাপনায় বন—নির্ভর স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে বনায়নে নুতন মাত্রাযোগ করা হচ্ছে।
মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহমুদ হাসান, আহমদ শামীম আল রাজী, মোঃ মিজানুল হক চৌধুরী ও মোঃ মনিরুজ্জামান, বন অধিদফতরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমির হোসাইন চৌধুরীসহ দফতর প্রধানগণ ও বিভিন্ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকগণ সভায় অংশ নেন।

#
দীপংকার/মাসুম/রফিকুল/জয়নুল/২০২১/২১১৫ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৬০০

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে এক কোটি নয় হাজার ৯৪৯ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :
মুজিববর্ষে আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে এক কোটি নয় হাজার ৯৪৯টি পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে। এ লক্ষ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে আজ ৪৫০ কোটি ৪৪ লাখ ৭৭ হাজার ৫০ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় সারা দেশের ৬৪টি জেলার ৪৯২টি উপজেলার জন্য ৮৭ লাখ ৭৯ হাজার ২০৩টি এবং ৩২৮টি পৌরসভার জন্য ১২ লাখ ৩০ হাজার ৭৪৬টিসহ মোট এক কোটি নয় হাজার ৯৪৯টি ভিজিএফ কার্ডের বিপরীতে এ বরাদ্দ দেয়া হয়। পরিবার প্রতি ১০ কেজি চালের সমমূল্য অর্থাৎ কার্ডপ্রতি ৪৫০ টাকা হারে আর্থিক সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে উপজেলাসমূহের জন্য ৩৯৫ কোটি ছয় লাখ ৪১ হাজার ৩৫০ টাকা এবং পৌরসভাসমূহের জন্য ৫৫ কোটি ৩৮ লাখ ৩৫ হাজার সাতশত টাকা অর্থাৎ সর্বমোট ৪৫০ কোটি ৪৪ লাখ ৭৭ হাজার ৫০ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয় ।

Sheikh Hasina, শেখ হাসিনা
Sheikh Hasina, শেখ হাসিনা

 

আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতর আনন্দের সাথে উদ্‌যাপনে অসহায়, দুস্থ ও অতিদরিদ্র পরিবারকে এই আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে। এক্ষেত্রে সাম্প্রতিক প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত, দুস্থ ও অতিদরিদ্র পরিবারগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। চলমান কোভিড পরিস্থিতিতে পবিত্র রমজানের প্রাক্কালে প্রদত্ত এ সহায়তা অতিদরিদ্র পরিবারগুলোর ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে।

#
সেলিম/মাসুম/রফিকুল/রেজাউল/২০২১/১৮৩৮ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৯৮

অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারীদের কঠোরভাবে মোকাবিলা করা হবে  —— শ ম রেজাউল করিম

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) : দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারীদের কঠোরভাবে মোকাবিলা করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

আজ রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তেনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ইনোভেশন শোকেসিং— ২০২১ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

মন্ত্রী বলেন, “করোনার সংকটেও দেশকে উশৃঙ্খলতার মাধ্যমে অস্থিতিশীল করার জন্য স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এবং তাদের পৃষ্ঠপোষক একটি মহল মাঠে নেমেছে। তারা মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ পছন্দ করে না, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশ পছন্দ করে না, বঙ্গবন্ধুর আরাধ্য স্বাধীন বাংলাদেশ পছন্দ করে না। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান মিলে হাজার বছরের সৌভাতৃত্ব ও সহমর্মিতার বাংলাদেশ পছন্দ করে না। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি যারা নষ্ট করতে চাইবে, মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ যারা ধ্বংস করতে চাইবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর—কঠিন ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা দেশের অভ্যন্তরে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করবে, বঙ্গবন্ধুকে আঘাত করবে, স্বাধীনতার স্বপ্নে আঘাত করবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

শ ম রেজাউল করিম, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
শ ম রেজাউল করিম, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

 

রেজাউল করিম বলেন, “সংবিধানের ৭(ক) অনুচ্ছেদ অনুসারে সংবিধানের কোন বিধি—বিধানকে অসাংবিধানিক উপায়ে রদ, রহিত, বাতিল, স্থগিত করলে বা করার জন্য ষড়যন্ত্র করলে তা ‘ষড়যন্ত্র’ হিসেবে গণ্য হবে। এছাড়া সংবিধানের বিধানের প্রতি নাগরিকদের আস্থা—বিশ্বাস নষ্ট করলে বা প্রত্যেক্ষ বা পরোক্ষভাবে সমর্থন করলেও তা ‘রাষ্ট্রদ্রোহিতা’র অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে যার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড হতে পারে। সাম্প্রতিক সময়ে সাংবিধানিক বিধান ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’, ‘জাতির পিতা’—ইত্যাদি নিয়ে সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর কৃতকর্ম স্পষ্ঠভাবে ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে প্রতিভাত।”

মন্ত্রী বলেন, প্রাণিসম্পদ খাত একসময় অবহেলিত ছিল। এখন এ খাতে একটা বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। সরকারের নীতি—নির্ধারণ ও বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তর ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিসর বৃদ্ধি করেছেন। তাঁর নির্দেশনায় মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির অনেক মাছ ফিরিয়ে এনেছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও চিফ ইনোভেশন অফিসার মোঃ তৌফিকুল আরিফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব রওনক মাহমুদ। অতিরিক্ত সচিব শাহ্ মোঃ ইমদাদুল হক ও শ্যামল চন্দ্র কর্মকারসহ মন্ত্রণালয় ও আওতাধীন দপ্তর—সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয় ও আওতাধীন দপ্তর—সংস্থার ৩২টি উদ্ভাবনী ধারণা উপস্থাপন করা হয়।

#
ইফতেখার/মাসুম/রফিকুল/রেজাউল/২০২১/১৮১৮ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৯৫

স্বাধীনতাবিরোধীদের সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে — মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ এবং স্বাধীনতার চেতনায় আঘাত আসলে বীর মুক্তিযোদ্ধারা বসে থাকবে না। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে বীর মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্র জমা দিয়েছেন, কিন্তু ট্রেনিং জমা দেননি। স্বাধীনতাবিরোধীদের সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে।

আজ রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে ঢাকা জেলা প্রশাসন আয়োজিত ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

আ ক ম মোজাম্মেল হক, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী
আ ক ম মোজাম্মেল হক, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

 

মোজাম্মেল হক বলেন, যারা ’৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ’৫৪ ও ’৭০ এর নির্বাচন এবং ১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলা ভাষা, বাঙালি জাতিসত্তা ও বাঙালির ন্যায়সঙ্গত অধিকারকে ধর্মের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করিয়েছিল, তাদের উত্তরসূরিরাই আজ মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করছে। এটা স্বাধীনতাবিরোধীদের ধারাবাহিক ষড়যন্ত্রের অংশ। তারা একাত্তরের পরাজয়ের গ্লানি আজও ভুলতে পারেনি।

মন্ত্রী জাতির পিতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু দেশ স্বাধীনই করেননি, দেশ কীভাবে চললে উন্নত ও মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে, তার পরিপূর্ণ দিকনির্দেশনাও দিয়ে গেছেন তিনি।

তিনি বলেন, বিশ্বযুদ্ধের সময়ের মিত্রবাহিনীর সদস্যরা এখনও বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছে, কিন্তু বঙ্গবন্ধু মাত্র তিন মাসের মধ্যে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সদস্যদের নিজ দেশে ফেরত পাঠান। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ তিনি স্বল্প সময়ের মধ্যে পুনর্গঠন করেন।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাঁদের সম্মান ও মর্যাদা নিশ্চিত করতে হবে। সে লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে। এ সময় মন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নতুন প্রজন্মের মাঝে ছড়িয়ে দিতে এবং বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন।

ঢাকা জেলা প্রশাসক মোঃ শহীদুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষ, ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মারুফ হোসেন সরদারসহ, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও বীর মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
#

মারুফ/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০২১/১৬৩০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৯৩

করোনাকালেও প্রমাণিত হলো আমরা বীরের জাতি — মোস্তাফা জব্বার

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, বঙ্গবন্ধু ও তার সুযোগ্য উত্তরসূরি শেখ হাসিনার দুরদৃষ্টিসম্পন্ন কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় হ্যানরি কিসিঞ্জারের তলাবিহীন ঝুড়িখ্যাত বাংলাদেশ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। ২০০৯ সালের ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বৈশ্বিক মহামারিতে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, ব্যবসা—বাণিজ্য, অফিস ও কলকারখানা চালুসহ স্বাভাবিক জীবনধারা সচল রেখেছে। অনেক উন্নত দেশসমূহের জিডিপি প্রবৃদ্ধি যেখানে ঋণাত্মক সেখানে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৫.২ শতাংশ। করোনাকালেও প্রমাণিত হলো আমরা বীরের জাতি।

মন্ত্রী আজ ঢাকায় বঙ্গবন্ধু প্রকৌশল পরিষদ টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড আয়োজিত স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচি ও মুজিববর্ষ স্মরণিকা ‘হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু’ এর মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী
মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

 

মোস্তাফা জব্বার বলেন, একাত্তরের পরাজিত শত্রুরা দিনে দিনে আরও শক্তিশালী হয়ে পরাজয়ের প্রতিশোধ নিচ্ছে। আমাদের বুঝতে হবে একাত্তরের যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি। বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে যথাযথভাবে উপস্থাপন করা বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি সৈনিকের কর্তব্য হওয়া উচিৎ।

মন্ত্রী বলেন, সামনের দিনে বাংলাদেশ অনেক বেশী অগ্রগতি অর্জন করবে কারণ আমাদের তরুণ প্রজন্ম অনেক মেধাবী ও সৃজনশীল। তিনি বলেন, বেতবুনিয়ায় ভূ—উপগ্রহ স্থাপন, আইটিইউ ও ইউপিইউ এর সদস্যপদ অর্জন ও টিএন্ডটি বোর্ড গঠন এবং প্রাথমিক শিক্ষা জাতীয়করণ করার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বাংলাদেশের বীজ বপন করে গেছেন। তিনি সামনের দিনগুলোতে ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা আরও বেগবান করতে সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আহ্বান জানান ।

বঙ্গবন্ধু প্রকৌশল পরিষদ টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড শাখার সভাপতি রওনক আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, টেলিটক এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী সাহাব উদ্দিন, আইইবি’র সভাপতি প্রকৌশলী নুরুল হুদা, ভাইস প্রেসিডেন্ট মো: নুরুজ্জামান ও প্রকৌশলী মঞ্জুর মোর্শেদ এবং সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. শাহাদাৎ হোসেন শিবলু বক্তৃতা করেন।
#

শেফায়েত/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০২১/১৬১০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৯২

শিল্পমন্ত্রীর সাথে সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ অধিক কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে শিল্প স্থাপনে বিনিয়োগ বাড়ানোর আহবান

ঢাকা, ১৭ চৈত্র (৩১ মার্চ) :

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, দেশে অধিক কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে শিল্প কারখানা স্থাপনে দেশি—বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। কর্মসংস্থান বৃদ্ধির পাশাপাশি রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প কারখানাগুলো লাভজনক করতে এর কার্যক্রম সারা বছর চালু রাখতে হবে। অলাভজনক শিল্প প্রতিষ্ঠানকে লাভজনক করতে নতুন বিনিয়োগের আহবান জানান তিনি।

মন্ত্রী আজ বাংলাদেশে নিযুক্ত শিল্প মন্ত্রণালয়ে সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত ঊংংধ ণড়ঁংবভ ঊংংধ অষফঁযধরষধহ এর সাথে সাক্ষাতকালে এ আহ্বান জানান। সাক্ষাতকালে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠানে সৌদি সরকারের বিনিয়োগের সর্বশেষ অগ্রগতি এবং বিনিয়োগ কার্যক্রম দ্রুত চূড়ান্ত করার বিষয়ে সার্বিক আলোচনা হয়।

নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, শিল্পমন্ত্রী
নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, শিল্পমন্ত্রী

 

শিপবিল্ডিং, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, অটোমোবাইল এবং এগ্রো ফুড প্রসেসিং শিল্পে সৌদি সরকারকে বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহবান জানান শিল্পমন্ত্রী। তিনি বলেন, বাংলাদেশে স্টিল ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন, কেমিক্যাল কর্পোরেশন ও সুগার কর্পোরেশনের সৌর বিদ্যুৎ, বিদ্যুৎ, ওষুধ, সার ও সিমেন্টখাতে সেদেশের বিনিয়োগ কার্যক্রম চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এসব ক্ষেত্রে বিনিয়োগ কার্যক্রম বাস্তবায়ন সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

শিল্পমন্ত্রী আরও বলেন, সৌদি আরবের সাথে শিল্প কারখানা সম্প্রসারণ ও ব্যবসা—বাণিজ্য সম্পর্ক সুদৃঢ় করতে বাংলাদেশ আন্তরিক। তিনি অভিন্ন স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। শিল্পখাতে দ্বিপাক্ষিক সহায়তার ক্ষেত্র চিহ্নিত করে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দেয়ার জন্য রাষ্ট্রদূতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব পেলে বাংলাদেশ সরকার তা যথাযথ গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করবে বলে তিনি জানান।

বর্তমানে বাংলাদেশে শিল্প কারখানা স্থাপন ও ব্যবসা—বাণিজ্যসহ বিনিয়োগের উপযুক্ত পরিবেশ রয়েছে বলে জানান সৌদি রাষ্ট্রদূত। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে সকল প্রকার সুযোগ—সুবিধা প্রদান করছে। বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে শিল্প কারখানা সম্প্রসারণ এবং ব্যবসা—বাণিজ্যে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এগিয়ে রয়েছে।

সৌদি রাষ্ট্রদূত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানান। সৌদি আরবের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত বাংলাদেশি শ্রমিকদের অংশগ্রহণ ও তাদের কাজের প্রশংসা করেন তিনি।
#

জাহাঙ্গীর/পরীক্ষিৎ/শাম্মী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০২১/১৬০০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৮৮

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন একজন অত্যন্ত শান্তিকামী নেতা —— পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ব্রাসেল্স, (৩০ মার্চ) :

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অত্যন্ত শান্তিকামী একজন নেতা এবং বাঙালির অধিকার আদায়ের সংগ্রামে তিনি সর্বদা শান্তিপূর্ণ পন্থায় নেতৃত্ব দিয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজও বিশ্বব্যাপী প্রতিটি ক্ষেত্রে শান্তির সংস্কৃতির ওপর সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে। জাতিসংঘে সাধারণ পরিষদে বাংলাদেশ প্রতিবছর ‘শান্তির সংস্কৃতি’ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা উত্থাপন করে, যা সকল সদস্য রাষ্ট্র কর্তৃক গৃহীত হয়।

ড. এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ড. এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী

 

বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক গতকাল সোমবার অনুষ্ঠিত ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান: জনগণের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রবাদপ্রতিম নেতা’ শীর্ষক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী একথা বলেন। বেলজিয়ামে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাহবুব হাসান সালেহ্—এর সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন, ডিসি—র শীর্ষস্থানীয় থিংক ট্যাংক হাডসন ইনস্টিটিউটের জ্যেষ্ঠ ফেলো এবং দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার পরিচালক রাষ্ট্রদূত হাক্কানী বক্তৃতা করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আশা করা হয়েছিল যে, পাকিস্তান একাত্তরে বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানী সামরিক বাহিনীর চালানো জঘন্যতম গণহত্যার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চাইবে। তিনি বলেন, যদিও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেষ মুহূর্তে একটি অভিনন্দন বার্তা পাঠিয়েছেন তবে দু:খজনকভাবে তিনি ১৯৭১ সালে নিরস্ত্র বাঙালি নরনারীর ওপর পাকিস্তানী সামরিক বাহিনী কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার জন্য ক্ষমা চাননি। ড. মোমেন আশা প্রকাশ করেন যে, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ একটি উন্নত, সুখী, সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত হবে।

ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় হাডসন ইনস্টিটিউটের জ্যেষ্ঠ ফেলো রাষ্ট্রদূত হাক্কানী বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালিই নন, তিনি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা এবং বিশ্বজুড়ে ২০ শতকের স্বাধীনতা সংগ্রামের একজন প্রবাদপ্রতিম নেতা। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবস্থান মহাত্মা গান্ধী এবং নেলসন ম্যান্ডেলার মতো মহান নেতাদের কাতারে।
রাষ্ট্রদূত মাহবুব হাসান সালেহ্ বলেন, ২০২১ সাল বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি অবিস্মরণীয় বছর, কারণ এ বছর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন করা হচ্ছে।
#
সালেহ/মাসুম/রেজুয়ান/রফিকুল/জয়নুল/২০২১/২২৫০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর :১৫৮৭

বঙ্গবন্ধু শুধু জাতির পিতাই নন, তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা —— ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

জামালপুর, ১৬ চৈত্র (৩০ মার্চ) :

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু আমাদের জাতির পিতাই নন, তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্থপতি। বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী নেতৃত্ব আর নিরলস সংগ্রামের ফলেই আমরা আজ পেয়েছি স্বাধীন দেশ। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু সাড়ে সাত কোটি বাঙালিকে স্বাধীনতার মন্ত্রে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। বাঙালি জাতিকে একটি সুন্দর—সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিয়েছেন, আমাদের হাতে একটি লাল সবুজের পতাকা তুলে দিয়েছেন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আজ জামালপুরের ইসলামপুরে বেলগাছা উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড বিএম কলেজ মাঠে শিক্ষকদের মাঝে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ও ‘বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি’শীর্ষক দু’টি বই বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। স্বল্পোন্নত দেশের পর্যায় হতে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় আসীন হয়েছে।

ফরিদুল হক খান, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
ফরিদুল হক খান, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

 

মানুষের জীবনমান এবং দেশের আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে এসেছে বিরাট পরিবর্তন। তিনি বলেন, তরুণ প্রজন্ম এখন অনেক বেশি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করে। সদ্য অনুষ্ঠিত পৌর নির্বাচনে ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ সেটি প্রমাণ করে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বাংলাদেশ দু’টি এক ও অভিন্ন বিষয়। যারা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিতর্ক করে তারা আর যাই হোক প্রকৃত দেশপ্রেমিক হতে পারে না। এ সময় তিনি করোনা মোকাবিলায় সকলকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানান।

বেলগাছা উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড বিএম কলেজের অধ্যক্ষ এ কে এম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ইসলামপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এড. জামাল আব্দুন নাছের বাবুল ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আঃ সালাম।

#
আনোয়ার/মাসুম/রফিকুল/জয়নুল/২০২১/২২৪০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৮১

বাংলাদেশে স্বাধীনতাবিরোধী প্রেতাত্মাদের উত্থান ঘটতে দেওয়া হবে না —— শ ম রেজাউল করিম

ঢাকা, ১৬ চৈত্র (৩০ মার্চ) : বাংলাদেশে স্বাধীনতাবিরোধী প্রেতাত্মাদের উত্থান ঘটতে দেওয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আজ ঢাকার গেন্ডারিয়ায় মিল ব্যারাক নৌ জেটিতে বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ আয়োজিত নৌ র্যালি—২০২১ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী রেজাউল করিম বলেন, ’৭১ এর রাজাকাররা কেউ হেফাজত নামে, কেউ নেজামে ইসলাম নামে, কেউ মুসলীম লীগ নামে নতুন করে দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করছে। ইসলাম ধর্ম সহিংসতায় বিশ্বাস করে না, সন্ত্রাসকে পছন্দ করে না, জঙ্গিবাদে বিশ্বাস করে না। মহানবি রাসুলুল্লাহ (সা.) ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেছেন। কারো ওপর জুলুম না করতে বলেছেন, ফেৎনা—ফাসাদ সৃষ্টি না করার জন্য বলেছেন। তিনি বলেছেন, এগুলো যুদ্ধের চেয়ে বড় অপরাধ। কিন্তু ইসলামের নামধারী কিছু উশৃঙ্খল, সাম্প্রদায়িক শক্তি বাংলাদেশকে নতুন করে অস্থিতিশীল অবস্থায় নিয়ে যেতে চাইছে।

শ ম রেজাউল করিম, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী
শ ম রেজাউল করিম, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

 

মন্ত্রী আরো বলেন, দেশ যখন শান্তিতে আছে, মানুষের যখন অভাব—অনটন নেই, অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসার সব সুযোগ যখন মিলছে, এটা একটা শ্রেণির লোকদের ভালো লাগছে না। এরা হলো মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি। ওরা মারা যায়নি। ওদের প্রেতাত্মারা বেঁচে আছে। তিনি বলেন, বর্তমানে ইলিশ আহরণে বাংলাদেশ পৃথিবীর সেরা অবস্থানে রয়েছে। বাংলাদেশ মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে তৃতীয় অবস্থান, স্বাদু পানির মাছ উৎপাদন বৃদ্ধিতে দ্বিতীয় অবস্থান এবং চাষের মাছ উৎপাদনে পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে। এক্ষেত্রে মৎস্যজীবীদের বড় ভূমিকা রয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, শেখ হাসিনার নেতৃত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সমালোচনা যেখানেই হবে সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য মৎস্যজীবী লীগের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী।

বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি মোঃ সায়ীদুর রহমানের সভাপতিত্বে সংগঠনটির কার্যকরী সভাপতি সাইফুল ইসলাম মানিক ও সাধারণ সম্পাদক লায়ন শেখ আজগর নস্কর এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
#

ইফতেখার/মাসুম/রফিকুল/জয়নুল/২০২১/১৮৫০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৭৫

জাতীয় মহিলা সংস্থায় বঙ্গমাতা জাদুঘর ও বঙ্গবন্ধু কর্নার উদ্বোধন

ঢাকা, ১৫ চৈত্র (২৯ মার্চ) : মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আজ রাজধানীর বেইলি রোডে জাতীয় মহিলা সংস্থায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা স্মৃতি জাদুঘর ও বঙ্গবন্ধু কর্নার উদ্বোধন করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেছা ইন্দিরা। এর মাধ্যমে জাতীয় মহিলা সংস্থায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জীবন, কর্ম ও আদর্শের ওপর বই, ছবি, ভিডিও ডকুমেন্টারি ও বিভিন্ন বিষয়ে সমৃদ্ধ সংগ্রহশালা তৈরি করা হয়েছে।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা আজীবন নারীর ক্ষমতায়ন ও সমতা প্রতিষ্ঠায় সচেষ্ট ছিলেন। তিনি সংবিধানে নারীর অধিকার নিশ্চিত করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত নারীদের পুনর্বাসনের জন্য নারী পুনর্বাসন বোর্ড গঠন করেন। বঙ্গবন্ধু নারীদের অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের জন্য কুটির শিল্পসহ কর্মমুখী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। বঙ্গমাতা নির্যাতিত নারীদের পুনর্বাসন ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। বঙ্গমাতা জাতির পিতার বিশ্বস্ত সহচর ও সাহসী শক্তি হয়ে আজীবন পাশে ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে তাঁর রয়েছে অপরিসীম অবদান।

ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী
ফজিলাতুন্নেসা ইন্দিরা, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

 

প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা আরো বলেন, বঙ্গমাতা জাদুঘর ও বঙ্গবন্ধু কর্নারে স্থাপিত বই, ছবি ও ঐতিহাসিক বিষয় নতুন প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে। এর মাধ্যমে বঙ্গমাতা ও বঙ্গবন্ধুর জীবন, আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হবে পরবর্তী প্রজন্ম। এটা জাতীয় মহিলা সংস্থার অত্যন্ত প্রশংসনীয় একটা উদ্যোগ।

জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান চেমন আরা তৈয়বের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক রাম চন্দ্র দাস, জয়িতা ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরোজা খান, শিশু একাডেমির মহাপরিচালক জ্যোতি লাল কুরী, অতিরিক্ত সচিব ফরিদা পারভীন, অতিরিক্ত সচিব ড. মহিউদ্দীন আহমেদ, জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক বেগম মাকসুরা নূর এবং জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী ও পরিচালনা পরিষদের সদস্যবৃন্দ।

#
আলমগীর/রোকসানা/মাসুম/রেজুয়ান/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২১/২০৩০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৫৯

মানুষের প্রতি নিখাঁদ ভালোবাসার কারণেই বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন দেশ প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন —— প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য

ঢাকা, ১৪ চৈত্র (২৮ মার্চ) : পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশের মানুষের জন‍্য যে অবদান রেখে গেছেন তা বাঙালি জাতি চিরকাল শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে। বঙ্গবন্ধু যে অবদান, যে কষ্ট, যে ত‍্যাগ তা অনস্বীকার্য। তিনি দীর্ঘদিন জেল খেটেছেন, সংগ‍্রাম করেছেন মানুষের প্রতি অকৃত্রিম, নিখাঁদ ভালবাসার জন‍্য। নিজের জীবন উৎসর্গ করে একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন।

স্বপন ভট্টাচার্য্য, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী
স্বপন ভট্টাচার্য্য, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী

 

আজ মণিরামপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ‍্যোগে উপজেলা পরিষদ চত্বরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষে ‘স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল বাংলাদেশ’ শীর্ষক দুই দিনব‍্যাপী উন্নয়ন মেলার সমাপনী দিবসে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতার স্বপ্ন ছিল দেশকে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে তোলা। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে তাঁরই সুযোগ‍্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এখন উন্নয়নের দিকে এগিয়ে চলছে। দেশ এখন আত্মমর্যাদা ও উন্নয়নশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে প্রতিষ্ঠা লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম উন্নত ও গর্বিত জাতি হিসেবে পৃথিবীর বুকে মাথা উচুঁ করে দাঁড়াবে। সেই প্রত‍্যাশায় সেই লক্ষ‍্যে সবাইকে একযোগে জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে সহযোগিতা করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, তিন বছরের মধ্যে মণিরামপুর উপজেলা পরিষদ ক্যাম্পাসকে একটি মনোরম পার্ক হিসেবে গড়ে তোলা হবে। সেই লক্ষ্যে মাস্টারপ্লান করে পরিকল্পিতভাবে কাজ করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসানের সভাপতিত্বে অন‍্যান‍্যের মধ‍্যে আরো বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) পলাশ কুমার দেবনাথ প্রমুখ।

#

আহসান/নাইচ/সঞ্জীব/রেজাউল/২০২১/২২০২ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৫৭

বাংলাদেশ যখন ‘বিশ্বে উন্নয়নের উদাহরণ’ তখনও ধর্মান্ধরা দেশকে পিছিয়ে দিতে তৎপর —— কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা, ১৪ চৈত্র (২৮ মার্চ) : কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা পৃথিবীতেই আলোড়ন তুলেছে, সারা পৃথিবী উদ্‌যাপনে শামিল হয়েছে। বিশ্বের যেসব দেশ মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশকে সহযোগিতা করেনি, স্বাধীনতার পক্ষে সমর্থন দেয়নি বরং বিরোধিতা করেছে; সেসব দেশও এই উদ্‌যাপনে শামিল হয়েছে, বাংলাদেশকে ‘বিশ্বে উন্নয়নের উদাহরণ’ হিসেবে উল্লেখ করেছে।

অথচ স্বাধীনতাবিরোধী, পাকিস্তানের এ দেশীয় দোসর—সহযোগী ও ধর্মান্ধরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উদ্‌যাপনকে ভণ্ডুল ও কালিমালিপ্ত করার জন্য অপকর্মে লিপ্ত রয়েছে। এই ধর্মান্ধদের ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে। এ দেশ থেকে ধর্মান্ধদের মূলোৎপাটন করতে হবে।

ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, কৃষিমন্ত্রী
ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, কৃষিমন্ত্রী

 

কৃষিমন্ত্রী আজ ঢাকায় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে কৃষি মন্ত্রণালয় এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সম্প্রতি ২০ নাগরিকের দেয়া বিবৃতি প্রসঙ্গে ড. রাজ্জাক বলেন, বিএনপি, জামাত ও ধর্মান্ধরা যখন প্রতিবাদের নামে জ্বালাও—পোড়াও, জনগণ ও সরকারি সম্পদ নষ্টসহ সাধারণ নাগরিকের জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে তখন এই তথাকথিত বুদ্ধিজীবীরা সবসময়ই নীরব থাকেন।

ভারতের মতো একটি গণতান্ত্রিক দেশের গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে নিয়ে আসা হয়েছে। কোন স্বৈরাচারকে নিয়ে আসা হয়নি। এটা নিয়ে ধর্মান্ধরা দেশে তাণ্ডব চালাচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম, ঢাকাসহ সারা দেশে প্রতিবাদের নামে জ্বালাও পোড়াও, জনগণ ও সরকারি সম্পদ নষ্টসহ সাধারণ নাগরিকের জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলছে। এ ধরনের আন্দোলন ও প্রতিবাদের অধিকার দেশের কোন নাগরিকের নেই। শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করার অধিকার সকল নাগরিকের রয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোঃ মেসবাহুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (ভার্চুয়াল), জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব ও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ওয়াহিদা আক্তার ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ আসাদুল্লাহ বক্তব্য রাখেন। মুখ্য আলোচক ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও বরেণ্য ইতিহাসবিদ ড. মুনতাসীর মামুন। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কবিতাপাঠ করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাসানুজ্জামান কল্লোল।

অর্থমন্ত্রী সভায় ভার্চুয়াল অংশ নিয়ে বলেন, অর্থনীতির সকল ক্ষেত্রে অসাধারণ সাফল্য অর্জিত হয়েছে। কৃষিতে এখনও অনেক সম্ভাবনা রয়েছে, সেগুলোকে পুরোপুরি কাজে লাগাতে পারলে দেশ আরো এগিয়ে যাবে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, দেশে দুটি শক্তি বিরাজমান। একটি উন্নয়নের পক্ষে আরেকটি ধ্বংসের পক্ষে। যারা দেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছিল তারাই আজ এ দেশের উন্নয়নের বিপক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, আগামী প্রজন্ম যেন উন্নত রাষ্ট্রে নিরাপদে ও স্বচ্ছন্দ্যে বাস করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমাদেরকে কাজ করতে হবে।

#
কামরুল/নাইচ/রেজুয়ান/সঞ্জীব/রেজাউল/২০২১/২১৩৪ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৪১

বঙ্গবন্ধুর ডাক পাকিস্তানের অস্ত্রের চেয়েও বেশি শক্তিশালী ছিলো —— স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

ঢাকা, ১৩ চৈত্র (২৭ মার্চ) : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ই মার্চের ভাষণের মাধ্যমে যে স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন তা পাকিস্তানের অস্ত্রের চেয়েও বেশি শক্তিশালী ছিলো।

আজ রাজধানীর আগারগাঁওয়ে জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউট আয়োজিত মুজিব শতবর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন উপলক্ষে ‘স্থানীয় সরকারে বঙ্গবন্ধুর ভাবনা এবং করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী একথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বলেছিলেন ‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। ‘তোমাদের যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো’, ‘ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো’। আর তখন পাকিস্তানের মতো বাঙালির হাতে কামান, বন্দুক, গোলা—বারুদ কোনো অস্ত্রই ছিল না। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আহ্বান বাঙালির নিকট তাদের সেই অস্ত্রের চেয়েও বেশি শক্তিশালী ছিল।

মোঃ তাজুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী
মোঃ তাজুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

 

তিনি জানান, যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছেন তাদেরকে নিয়ে একসময় হাসি ঠাট্টা, তিরস্কার করা হয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধারা তাঁদের সার্টিফিকেট লুকিয়ে রাখতো। কোথাও মুক্তিযুদ্ধ করার কথা বলতে পারতো না। অত্যাচার নির্যাতনের কারণে আত্মগোপন করেছিলেন। অথচ মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা নিজেদেরকে গর্ব করে রাজাকার বলে পরিচয় দিতো।

এ প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান, যারা বাংলাদেশকে মনে প্রাণে বিশ্বাস করে, স্বাধীনতার প্রতি যাদের ন্যূনতম বিশ্বাস আছে। তাহলে বঙ্গবন্ধুকে, মুক্তিযুদ্ধকে এবং মুক্তিযোদ্ধাদেরকে স্বীকার করতেই হবে।

কারণ এদেশের স্বাধীনতা ৩০ লক্ষ শহিদ এবং দুই লক্ষাধিক মা—বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে। সারা পৃথিবীতে এত বড় রক্তক্ষয়ের মাধ্যমে আর একটিও স্বাধীনতা অর্জিত হয়নি।

মোঃ তাজুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহকে শুধু শক্তিশালী করলেই হবে না। এসব প্রতিষ্ঠানের স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতাও বৃদ্ধি করতে হবে। জনগণের অংশগ্রহণ ব্যতীত স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করা সম্ভব নয়। আর সবাইকে ভাল রাখতে হলে সবার অংশগ্রহণ প্রয়োজন। এটাই ছিল বঙ্গবন্ধুর দর্শন। এ দর্শন বাস্তবায়িত হলে দেশ উন্নয়নের শেখরে পৌঁছাবে।
স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন এনআইএলজির মহাপরিচালক সালেহ মোহাম্মদ মোজাফফর।

সেমিনারে স্থানীয় সরকার বিভাগ ও এর অধীন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের প্রতিনিধিগণ অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

#
হায়দার/নাইচ/রেজুয়ান/মোশারফ/সেলিম/২০২১/২৩০০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৪০

তরুণদের সৃজনশীল কাজ বিকশিত করতে ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফাউন্ডেশন একটি প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করতে পারে —— বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ১৩ চৈত্র (২৭ মার্চ) :

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, তরুণদের সৃজনশীল কাজ বিকশিত করতে ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফাউন্ডেশন একটি প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করতে পারে। উপযুক্ত মাধ্যম পেলে আমাদের তরুণদের দ্যুতি দ্রুত প্রজ্বলিত হবে। ওরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে যে কোনো অসাধ্য সাধন করা সম্ভব।

প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় বাংলাদেশ শ্যুটিং স্পোর্টস ফেড়ারেশনে এম্ব্রেলার সহযোগিতায় ‘যুব উদ্যোক্তা উৎসব’ এ পুরুস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

নসরুল হামিদ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী
নসরুল হামিদ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

 

নসরুল হামিদ বলেন, মুজিববর্ষে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে মননশীল কাজে তরুণদের সংগঠিত করার প্রচেষ্টা খুবই প্রশংসনীয়। বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু নিয়েও তরুণদের মাঝে আগ্রহ সৃষ্টি করতে হবে। ২০৪১ সালে যে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হবে তার কাণ্ডারিও হবে আজকের এই তরুণরা। সমৃদ্ধ বাংলাদেশ পরিচালনার জন্য যে মনস্তাত্ত্বিক দৃঢ়তা প্রয়োজন তা অর্জনে তরুণদের সহযোগিতার দ্বার উন্মুক্ত রাখতে হবে।

উল্লেখ্য যে, ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গত ১৯—২১ মার্চ ২০২১ তিন দিনব্যাপী ঢাকায় বাংলাদেশ শ্যুটিং স্পোর্টস ফেড়ারেশনে এম্ব্রেলার সহযোগিতায় ‘যুব উদ্যোক্তা উৎসব’ অনুষ্ঠিত হয়। এতে মিঠাইওয়ালা, কাদম্বরী, মুসকান বুটিক, ব্রাইডাল, মম জামদানি হাউস, মুনস বুটিক, এমব্রেলাসহ ৭৯টি যুব উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। আজ প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে সনদপত্র ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। পরে ইয়ুথ বাংলা আইপি টিভির শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়।

ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোঃ মোজাহের উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শিমুল মোস্তফা ও সামিয়া আফরিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফাউন্ডেশনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক সীমা হামিদ, নাট্যব্যক্তিত্ব দিলারা জামান, নাট্যব্যক্তিত্ব আল মামুন, কন্ঠ শিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ বক্তব্য রাখেন।

#

আসলাম/নাইচ/রেজুয়ান/মোশারফ/সেলিম/২০২১/২৩১০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৩৯

সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদ রুখতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভূমিকা অগ্রগণ্য —— কে এম খালিদ

ঢাকা, ১৩ চৈত্র (২৭ মার্চ) :

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে একটি সুখী, সমৃদ্ধ অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ নিজেদের জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সে লক্ষ্য অর্জনে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

যে কারণে সম্প্রতি বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি অর্জন করেছে। কিন্তু হেফাজতে ইসলামসহ একটি সাম্প্রদায়িক মৌলবাদী গোষ্ঠী এ উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে দেশে সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়াতে চেষ্টা করছে। এ সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদ রুখতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভূমিকা অগ্রগণ্য।

প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর মিরপুরস্থ বিজয় রাকিন সিটিতে মুজিব জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ‘মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার কল্যাণ সমিতি’ আয়োজিত আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

কে এম খালিদ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী
কে এম খালিদ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী

 

কে এম খালিদ বলেন, বর্তমান সরকার জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে তাঁদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ—সুবিধা প্রদান করে আসছে। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই প্রথম মুক্তিযোদ্ধা ভাতা প্রদান শুরু করা হয়, যা বর্তমানে ২০ হাজার টাকায় উন্নীত হয়েছে। তিনি বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা নিশ্চিতকরণে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ ও তা বাস্তবায়নে কাজ করে চলেছে। সে ধরনেরই একটি পদক্ষেপের সফল বাস্তবায়ন ‘বিজয় রাকিন সিটি’, যা বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের যুগোপযোগী, আধুনিক ও মানসম্পন্ন আবাসন নিশ্চিতে ভূমিকা রাখবে।

মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান এ. টি. আহমেদুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রেস সচিব ও সাবেক প্রধান তথ্য অফিসার এ কে এম শামীম চৌধুরী এবং মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোর্শেদুল আলম।

প্রতিমন্ত্রী এর আগে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘অমর একুশে বইমেলা ২০২১’ এর গ্রন্থ উন্মোচন মঞ্চে কবি ইসলাম সাইফুলের দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘নোনা জলে ধুয়ে দেখি অন্য ছবি গোপনে গোপনে’ এর মোড়ক উন্মোচন করেন।
#

ফয়সল/রোকসানা/নাইচ/রেজুয়ান/মোশারফ/সেলিম/২০২১/২২৩০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৩৮

ডাকঘরের ডিজিটাল রূপান্তরের কার্যক্রম শুরু হয়েছে —— মোস্তাফা জব্বার

ঢাকা, ১৩ চৈত্র (২৭ মার্চ) :

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, প্রচলিত ডাক সেবাকে ডিজিটাল ডাক সেবায় রূপান্তরের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ডাকঘরের প্রতিটি কর্মকাণ্ড ডিজিটাল করতে ডাকসেবায় নিয়োজিত প্রতিটি স্তরের কর্মকর্তা—কর্মচারীকে ন্যূনতম ডিজিটাল দক্ষতা অর্জন করা অপরিহার্য।

ডাকসেবার প্রতি হারানো আস্থা ফিরিয়ে আনতে ডিজিটালাইজেশনের পাশাপাশি ডাকঘরকে মানুষের আস্থার জায়গায় উপনীত করার কোনো বিকল্প নেই। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার ধারাবাহিকতায় ডিজিটাল ডাকঘর কর্মসূচি বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত করতে গৃহীত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে মন্ত্রী সংশ্লিষ্টদের আরো তৎপর হওয়ার নির্দেশ দেন।

মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী
মোস্তাফা জব্বার, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

 

মন্ত্রী আজ ঢাকায় ডাকভবনে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশ পোস্ট অফিস কর্মচারী ইউনিয়ন আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগা মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা মানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা, রাষ্ট্রভাষা, রাষ্ট্রের প্রাথমিক ভিত রচনা থেকে শুরু করে ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রপরিচালনার দিক নির্দেশনা দিয়ে গেছেন।

মন্ত্রী গত ১২ বছরে দেশের অগ্রগতির চিত্র বর্ণনা করে বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। তিনি দেশের উন্নয়ন সূচক তুলনামূলক পার্থক্য তুলে ধরে বলেন, করোনাকালে ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচির প্রয়োজনীয়তা একজন প্রথম শ্রেণি পড়ুয়া গ্রামের শিশুটি পর্যন্ত উপলব্ধি করতে পেরেছে।

ডিজিটাল সুবিধা সম্প্রসারণের ফলে অচল জীবনযাত্রা সচল রাখা সম্ভব হয়েছে। নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের শিশুটিকে যেমন ডিজিটাল শিক্ষা গ্রহণ করতে হয়েছে, বিচারক বাড়িতে বসে ডিজিটাল কোর্ট চালু রেখেছেন, সরকার পরিচালনায় আমরা ঘরে বসে কাজ করছি। এই রূপান্তর ভবিষ্যৎকে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে করোনা পরবর্তী পৃথিবী করোনা পূর্ববর্তী যুগে ফেরত যাওয়ার সুযোগ নেই। এটাই ভবিষ্যৎ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মন্ত্রী ডাকঘরের বিদ্যমান সেবায় অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ডাকঘরের কর্মকর্তা—কর্মচারীদের অদক্ষতা ও অনিয়ম বরদাশত করা হবে না। যে কোনো অবহেলার আইনানুগ শাস্তি ভোগ করতে হবে।

বাংলাদেশ পোস্ট অফিস কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ মোসলেম হাওলাদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডাক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ সিরাজ উদ্দিন, অতিরিক্ত মহাপরিচালক হারুনুর রশিদ, বাংলাদেশ পোস্ট অফিস কর্মচারী ইউনিয়নের সেক্রেটারি খলিলুর রহমান ভূঞা বক্তৃতা করেন।

#

শেফায়েত/রোকসানা/নাইচ/রেজুয়ান/মোশারফ/সেলিম/২০২১/২২০০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৩৭

মুক্তিযুদ্ধের মিত্রবাহিনীর ৩০ সদস্যকে সংবর্ধনা

ঢাকা, ১৩ চৈত্র (২৭ মার্চ) :

একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী মিত্রবাহিনীর ভারতীয় সদস্যদের সংবর্ধনা দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। রাজধানীর এক হোটেলে আজ রাতে মুক্তিযুদ্ধে সহায়তাকারী ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর ৩০ সদস্যকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তপন কান্তি ঘোষ, বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী সাজ্জাদ আলী জহির বীর প্রতীক, ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. মুনতাসীর মামুনসহ ভারতীয় হাইকমিশন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং সশস্ত্র বাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী মিত্রবাহিনীর ভারতীয় সদস্যদের সংবর্ধনা
একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী মিত্রবাহিনীর ভারতীয় সদস্যদের সংবর্ধনা

 

মিত্রবাহিনীর সদস্য হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া ভারতের সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল নারায়ণ শংকর নায়ারের নেতৃত্বে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সদস্যরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সরকারের আমন্ত্রণে বাংলাদেশে এসেছেন।

বিদেশি বন্ধুদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান বাংলাদেশের ইতিহাসে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর অবদানের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, প্রায় এক কোটি মানুষকে আশ্রয় দিয়ে, খাবার দিয়ে, প্রশিক্ষণ দিয়ে ভারত সহায়তা না করলে এত অল্প সময়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হতে পারত না। স্বাধীনতার কয়েক মাস পরই ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সদস্যদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে বন্ধুত্বের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে ভারত।

মন্ত্রী আরো বলেন, একাত্তরের বন্ধুদের বাংলাদেশ যথাযথ সম্মান করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী ভারতীয় সেনাদের স্মরণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হচ্ছে বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, রক্তের বিনিময়ে ভারত ও বাংলাদেশের যে বন্ধন সৃষ্টি হয়েছে তা দিনে দিনে দৃঢ় হয়েছে ।

#

মারুফ/রোকসানা/নাইচ/রেজুয়ান/রফিকুল/সেলিম/২০২১/২১২৫ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী নম্বর : ১৫৩৫

বঙ্গবন্ধু বাঙালিদের শাসক বানিয়েছেন —— সমাজকল্যাণ মন্ত্রী

ঢাকা, ১৩ চৈত্র (২৭ মার্চ) :

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালিদের মানুষ করে গেছেন। বাঙালিরা যা বলে তা করে, তা তিনি প্রমাণ করে গেছেন। বাঙালিরা শত শত বছর ধরে ছিল শাসিত। বাঙালিরা কোনো দিন শাসন করতে পারেনি, সেই বাঙালিদেরকে বঙ্গবন্ধু শাসক বানিয়ে গিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু বাঙালিদেরকে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন।

মন্ত্রী আজ জেলা প্রশাসন, লালমনিরহাট—এর আয়োজনে ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী: স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল বাংলাদেশ’ উদ্যাপন কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

নুরুজ্জামান আহমেদ, সমাজকল্যাণমন্ত্রী
নুরুজ্জামান আহমেদ, সমাজকল্যাণমন্ত্রী

 

নুরুজ্জামান আহমেদ বলেন, যারা স্বাধীনতাকে মেনে নেয়নি, স্বাধীনতার চেতনাকে বুকে ধারণ করেনি, লালন করেনি তারা ১৯৭১ সালের ১৫ আগস্ট কাপুরুষের মতো অতর্কিতভাবে বঙ্গবন্ধুকে স্ব—পরিবারে হত্যা করেছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে স্বাধীনতার চেতনা ভুলুণ্ঠিত করার চেষ্টা করে তারা সফল হয়নি। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর দীর্ঘ ২১ বছর যারা ক্ষমতায় ছিল এ দেশকে তারা কিছুই দেয়নি। তারা বঙ্গবন্ধুর অবদানকে অস্বীকার করে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে মিথ্যাচারের মাধ্যমে মানুষকে বিপথগামী করতে চেয়েছিল, তাদের সে আশা কখনো পূরণ হয়নি।

মন্ত্রী বলেন, যারা আমাদের স্বাধীনতার ইতহাসকে নিয়ে মিথ্যাচার করে জনগণকে ভুল বুঝিয়েছে, আজকে তারা ধর্মের নামে রাজনীতি করে মানুষকে মিথ্যাচারের মাধ্যমে বিপথগামী করতে চায়। মিথ্যাচার না করে স্বাধীনতার সত্য ইতিহাসকে মানুষের মাঝে তুলে ধরে বাঙালি জাতিকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ জাতির মর্যাদায় আসীন করতে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য তিনি সবার প্রতি আহ্বান জানান।

লালমনিরহাট জেলার জেলা প্রশাসক মোঃ আবু জাফরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন লালমনিরহাট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট মতিউর রহমান, পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা ও লালমনিরহাট পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম স্বপন প্রমুখ।

পরে মন্ত্রী ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী: স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল বাংলাদেশ’ উদ্যাপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

#
জাকির/রোকসানা/সাহেলা/রফিকুল/সেলিম/২০২১/২০০৫ ঘণ্টা

 

আরও দেখুন:

This post is also available in: বাংলাদেশ

“সরকারি তথ্যবিবরণী [ ১৬১০ – ১৫৩৫ ] – তথ্য অধিদফতর”-এ 1-টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন